Posts Tagged ‘বাণিজ্য’

অ্যাডাম স্মিথের দৃষ্টিতে উপনিবেশ-অর্থনীতি

ডিসেম্বর 25, 2012

ঔপনিবেশিকতা নিয়ে পড়াশোনা করতে গিয়ে দেখলাম বিশ্বখ্যাত অর্থনীতিবিদ অ্যাডাম স্মিথের বই দ্য ওয়েলথ অব নেশনশে (১৭৭৬) ঔপনিবেশিকতা ও তার অর্থনীতি নিয়ে আলোচনা আছে। অ্যাডাম স্মিথের লেখা বইটিকে আধুনিক অর্থনীতির জনক বলা যায়। বইতে কলো্নী সংক্রান্ত অর্থনীতি নিয়ে আলোচনার সময় মাথায় রাখা দরকার যে অ্যাডাম স্মিথ ঔপনিবেশিকতার তীব্র বিরোধী ছিলেন। কিন্তু তার বিরোধিতা মানবিকতা বা অধিকারের প্রশ্নে নয়, নিতান্তই অর্থনীতির প্রশ্নে। যদিও তার বইতে তিনি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীকে বরাবর দায়ী করেছেন বাংলার দুরাবস্থার জন্য, কিন্তু তার অর্থনীতির ফোকাস থেকে সরে যান নি। তিনি বইতে দেখানোর চেষ্টা করেছেন ঔপনিবেশিকের জন্যও কলোনী-ব্যবস্থা লাভজনক নয় ও দীর্ঘমেয়াদে যে দেশগুলো ঔপনিবেশিক হবে না, তারা অন্যেদের থেকে অর্থনৈতিকভাবে অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে।

উপনিবেশের সাথে ইউরোপের ব্যবসা দু’ভাবে দেখছেন স্মিথ। প্রথমটা শুধুমাত্র ব্যবসার সম্পর্ক – যাতে ইউরোপীয়রা লাভ করছে। বর্তমান উপনিবেশেরা কেউই খুব একটা শিল্পোন্নত নয়, তাই সেই দেশগুলো থেকে কাঁচামাল সংগ্রহ করা ও শিল্পজাত পণ্য বিক্রি করার কাজটা ইউরোপীয়রা ভাল-ভাবেই করছে। এই ব্যবসায় লাভ এতটাই হচ্ছে যে তার ফলে মুদ্রার অপর পিঠ দেখা হচ্ছে না। মুদ্রার অপর পিঠ ক্ষতিকর – সেটা হল একচেটিয়া বাণিজ্য। একচেটিয়া বাণিজ্য ঔপনিবেশিকের জন্য ক্ষতিকর। কারণ কি?

স্মিথের মতে ঔপনিবেশিকেরা একে অপরের সাথে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এই একচেটিয়া বাণিজ্যের সুবিধাটুকু হারিয়ে ফেলে। ইংল্যন্ডের পক্ষে তুলো আনা সহজ বলে ইংল্যান্ড টেক্সটাইলের ক্ষেত্রে বেশী দাম চাইতে যেমন পারে, তেমন ইন্দোনেশিয়ার মালিক ডাচেরা মশলার জন্য বেশী দাম চাইছে। উভয়ের কারও সকল সম্পত্তির ওপর যেহেতু অধিকার নেই, তাই স্থানীয় ভোগের ক্ষেত্রে ছাড়া ইউরোপে রপ্তানীর ক্ষেত্রে লাভ-লোকসান মোটের ওপর শূন্যে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে। এ তো গেল প্রথম সমস্যা। এর পরের সমস্যা হল শিফট অব ক্যাপিটাল বা মূলধনের সরণ। স্মিথের মতে মূলধনের স্বভাবই হল কম লাভজনক ব্যবসা থেকে সরে বেশী লাভজনক ব্যবসায় চলে যাওয়া। ঔপনিবেশিকের ঘরোয়া বাজারের মূলধন ইউরোপীয় বাণিজ্য থেকে সরে কলোনী বাণিজ্যে চলে যাবে – যা দীর্ঘমেয়াদে দেশকে ইউরোপীয় বাণিজ্যে দুর্বল করে দেবে। যদি ভবিষ্যতে কখনো কলোনী-বাণিজ্য অনিশ্চিত হয়ে পড়ে তাহলে ঔপনিবেশিকের অনেক পরিশ্রম করে গড়ে তোলা কলোনী বাণিজ্য থেকে মূলধন আবার সরিয়ে আনা শক্ত হবে। এই একচেটিয়া বাণিজ্য বিষয়ে স্মিথের একটা পর্যবেক্ষণ ও একটা ভবিষ্যতবাণীর উল্লেখ না করে পারছি না। স্মিথের মতে ইউরোপে নৌশক্তি ও ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্পে অগ্রণী ছিল স্পেন ও পর্তুগাল। সেইমত তারাই প্রথম কলোনী-বাণিজ্যে নামে। কিন্তু স্মিথের মতে, দক্ষিণ আমেরিকাকে কলোনী বানাবার পরে এই দুই দেশের বাণিজ্য এদের উপনিবেশের পথ ধরে মূলত কৃষিভিত্তিক হয়ে পড়ে। তাই ধীরে ধীরে তাদের ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প মার খাবে ও ফলশ্রুতিতে নৌশক্তিও দুর্বল হয়ে পড়বে। অন্যদিকে গরিব ডেনমার্ক (তৎকালীন ডেনমার্ক ও নরওয়ে) বা সুইডেন (বর্তমানের সুইডেন ও ফিনল্যান্ড) – যাদের অর্থনীতি বাকিদের তুলনায় দুর্বল বা জার্মানী – যার নৌশক্তি সীমিত – তারা তাদের মূলধনের সর্বোত্তম ব্যবহারে (ইউরোপমুখী বাণিজ্য) মনোযোগ দেবে ও কখনও কলোনী বাণিজ্য বিপন্ন হলে এরা ঔপনিবেশিকদের তুলনায় অনেক দ্রুত উন্নতি করবে।

আমি ১৮৭০ সালে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মাথাপিছু গড় আয়ের সাথে বর্তমানের বিভিন্ন দেশের গড় আয়ের একটা তুলনা দিলাম। তালিকা (ব্র্যাকেটে র‌্যাঙ্ক) থেকে স্পষ্ট, স্পেন ও পর্তুগাল তাদের প্রাথমিক ঔপনিবেশিক সুবিধা হারিয়েছে সেই উনিশ শতকের গোড়ায় লাতিন আমেরিকার ওপর থেকে দখল উঠে যাওয়ায়। ব্রিটেন, ফ্রান্স ও হল্যান্ড আছে মাঝে আর ওপরে আছে সুইডেন, নরওয়ে ও ডেনমার্ক – ঠিক যেমনটা বলেছিলেন স্মিথ। জার্মানীর ক্ষেত্রে বিষয়টা ততটা খাটে নি, হয়ত পূর্ব-জার্মানীর কারণে। ১৭৭৬ সালে বসে উপনিবেশ-উত্তর পৃথিবীর অর্থনীতি সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করার মত একটা শক্ত পরীক্ষায় স্মিথ উত্তীর্ণ। আগের লেখায় আমি দেখিয়েছিলাম উপনিবেশ-উত্তর যুগে উপনিবেশগুলোর তুলনায় ঔপনিবেশিকেরা অনেক দ্রুত উন্নতি করেছে। আসলে, যারা উপনিবেশ-ব্যবসায় নামে নি অথচ মুক্ত-বাণিজ্যে নাম লিখিয়েছে, তারা আরও তাড়াতাড়ি উন্নতি করেছে।

ব্রিটেন – ৩১৯০(১), ৩৭৭৮০(৭)
স্পেন – ১২০৭(৭), ৩০৯০০(৮)
পর্তুগাল – ৯৭৫(৯), ২১২৫০(৯)
ডেনমার্ক – ২০০৩(৩), ৬০৩৯০(২)
নরওয়ে – ১৩৬০(৬), ৮৮৮৯০(১)
সুইডেন – ১৬৬২(৫), ৫৩২৩০(৩)
নেদারল্যান্ডস – ২৭৫৭(২), ৪৯৭৩০(৪)
ফিনল্যান্ড – ১১৪০(৮), ৪৮৪২০(৫)
জার্মানী – ১৮৩৯(৪), ৪৩৯৮০(৬)

তবে এ সব সত্ত্বেও স্মিথ বলেছেন, একচেটিয়া বাণিজ্যের ফলে আপেক্ষিক ক্ষতির তুলনায় হয়ত বর্তমান কলোনী-বাণিজ্য বস্তুটা বেশী লাভজনক। কিন্তু আসল লোকসান অন্যখানে। এই একচেটিয়া বাণিজ্য চালিয়ে যেতে গেলে যে সামরিক শক্তিতে যে পরিমাণ বিনিয়োগ করতে হয় সেই খরচা একচেটিয়া বাণিজ্য থেকে আসা লাভের তুলনায় অনেক বেশী। ১৭৩৯ সালে শুরু হওয়া ইঙ্গ-স্প্যানিশ যুদ্ধের উদাহরণ টেনে বলেছেন – এটা যেন গুপ্তধনের সন্ধান পাওয়া দুইদল দস্যুর লড়াই। লড়াই শেষে উভয়েই ভাগ-বাঁটোয়ারায় সম্মত হল বটে – কিন্তু ততক্ষণে তাদের অনেক শক্তিক্ষয় হয়েই গেছে। মুক্ত-বাণিজ্যের পরিবর্তে একচেটিয়া বাণিজ্যে যে বাড়তি লাভ হচ্ছে তার থেকে অনেক বেশীই ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে সাম্রাজ্য বজায় রাখতে। এরপরে উপনিবেশগুলো চিরকাল ঔপনিবেশিক শাসন মেনে নেবে এমনটা ভাবারও কোনো কারণ নেই, তাদের স্বাধীনতা ঘোষণার সাথেই ঔপনিবেশিকদের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে হবে। শুধু এখানেই শেষ না, এই বাড়তি সামরিক শক্তি ও সাম্রাজ্য বজায় রাখতে যে দক্ষ মানব-সম্পদ ব্যবহার হচ্ছে তারা অন্য কোনো অধিকতর উৎপাদনশীল খাতে (স্মিথের মতে ম্যানুফ্যাকচারিং) সময় বিনিয়োগ করতে পারত। সবশেষে, একচেটিয়া বাণিজ্য ও তার নিমিত্ত সামরিক শক্তি – এই দুই খাতে বেশী মনোযোগী হওয়ায় সরকারের পক্ষে নাগরিকদের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার দিকে নজর দেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না। লবি অব শপ-কিপার্স কার্যত সরকার চালাচ্ছে – দেশের অন্যান্য শ্রেণীর মানুষ সমান সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

ঔপনিবেশিকতার ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরার পরেও স্মিথের ব্যাখ্যা থেমে থাকে নি। ইংল্যান্ড কি তাহলে উপনিবেশগুলোকে স্বাধীন করে দেবে? স্মিথ বলেছেন – ব্যাপারটা অত সহজ না। কার্যত এটাই আদর্শ হলেও ইতিহাসে কোনো দেশই স্বেচ্ছায় কোনো দেশই সূচ্যাগ্র মেদিনীও ছেড়ে দেয় নি, তার জন্য যত ক্ষতি বা কষ্টই স্বীকার করতে হোক না কেন। কারণ এই বিষয়টা দেশের গৌরবের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত আছে, আর সাধারণ মানুষ চাইলেও দেশের শাসক শ্রেণীর কাছে দেশের গৌরব বিষয়টার মূল্য অপরিসীম। আমার ব্যক্তিগত উপলব্ধিতেও বুঝেছি যে সাম্রাজ্যবাদের মূলকথা আসলে এইখানেই। নিজের অধীনস্থ মানুষ বা অঞ্চলের পরিমাপের মাধ্যমে মানুষের শূন্য আত্মগৌরবের জন্ম, যা বিবর্তনীয় ইতিহাসের পথে অন্যান্য জীবের মধ্যেও পরিলক্ষিত হয়। এর সন্ধানেই সাম্রাজ্যবাদের পেছনে ছোটে দেশ, শাসক বা রাষ্ট্র – তাতে দেশের লাভ হতে পারে, লোকসানও হতে পারে।

মুক্তবাণিজ্যের সমর্থক স্মিথ এরপরে বর্ণনা দিয়েছেন কি ভাবে উপনিবেশের সাথে সুসম্পর্ক রেখে শুধু মুক্ত-বাণিজ্য চালানোই দেশের লক্ষ্য হওয়া উচিত। ট্যাক্স-অনুপাতে ভোটাধিকার দিয়ে একটা আন্তর্জাতিক পার্লামেন্ট তৈরীর প্রস্তাবও আছে। সবেমিলে, স্মিথের লেখায় আমি এমন অনেক সামগ্রী পেলাম যা ১৭৭৬ সালে লেখা কোনো বইতে পাব বলে ভেবে দেখিনি। আগ্রহী পাঠকেরা বইটার ফ্রি-পিডিএফ ভার্সান, সংক্ষেপিত যে কোনো ভার্সান বা ওই সংক্রান্ত আর্টিকেল পড়ে দেখতে পারেন। অর্থনীতি নিয়ে বিন্দুমাত্র আগ্রহ থাকলে বলেই দিতে পারি – হতাশ হবেন না।

পড়ে দেখতে পারেন –
১) বইটার পিডিএফ
২) সাম্রাজ্যবাদ দিয়ে লেখার সংক্ষেপ
৩) ইউরোপের কিছু দেশের মাথাপিছু আয়ের গুগল-চার্ট

বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি ও ভবিষ্যত

ডিসেম্বর 25, 2012

বাংলাদেশের বৈদেশিক বাণিজ্যের ঘাটতি নিয়ে দেশীয় পত্রপত্রিকায় অনেক লেখা হয়। বিশেষত ভারতের ও চিনের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে অনেক লেখাই আসে, একইরকম ভাবে ক্রমবর্ধমান বাণিজ্য ঘাটতি নিয়েও কিছু লেখা আসে। আমি বাংলাদেশের সাম্প্রতিক বাণিজ্যের রেকর্ড নিয়ে কিছু পরিসংখ্যান নিয়ে নাড়াচাড়া করছিলাম। একটা প্যাটার্ন স্পষ্ট চোখে পড়ে। বাংলাদেশ এশিয়ার দেশগুলোর সাথে ঘাটতি বাণিজ্য চালায়। আবার উল্টোদিকে উন্নত ইউরোপীয় দেশগুলো ও আমেরিকার সাথে বাণিজ্য-উদ্বৃত্ত থাকে। এর সাথে আছে সারা বিশ্ব থেকে পাঠানো শ্রমিকদের রেমিট্যান্স। এই সবে মিলে বাংলাদেশ আয়ের চেয়ে সামান্য কিছু কম ব্যয় করে। এই উদ্বৃত্ত বা কারেন্ট একাউন্ট সারপ্লাস বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার তহবিল মজবুত করে। এ ছাড়া আছে ক্যাপিটাল একাউন্ট – যেখানে জমা পড়ে বিদেশী বিনিয়োগের টাকা। বৈদেশিক মুদ্রা তহবিল (ক্যাপিটাল একাউন্ট ও কারেন্ট একাউন্ট সারপ্লাস) বাংলাদেশের মুদ্রার (টাকা) বিনিময়মূল্য নির্দিষ্ট রাখতেও সাহায্য করে। মোটের ওপর এভাবেই বাংলাদেশের অর্থনীতি চলছে।

আমি মূলত আলোচনা করব বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে। বাংলাদেশের পত্রিকায় এই বিশেষ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয় অনেক। মূল বক্তব্য থাকে দেশ আমদানী-নির্ভর হবার সমস্যা, এর সাথে আসে কিছু রাজনৈতিক আলোচনা। পরিসংখ্যানগতভাবে খুব একটা গভীরে আলোচনা যায় না, তাই আমি কিছু পরিসংখ্যান প্রস্তুত করার চেষ্টা করি। আমি ২০০৯ সালে বাংলাদেশের ২৫ টি বৃহত্তম এশিয়ান বাণিজ্য পার্টনার নিয়ে কিছু চার্ট তৈরী করলাম। দেখা গেল – এর ২৩টি দেশের সাথেই বাংলাদেশের ঘাটতি বাণিজ্য চলে। উদ্বৃত্ত বাণিজ্য চলে শুধুমাত্র ইরান ও তাজিকিস্তানের সাথে। এর মধ্যে ক্রমাণ্বয়ে চিন, ভারত, সিঙ্গাপুর, জাপান, মালয়েশিয়া, হংকং ও দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে দুশো মিলিয়ন ডলারেরও বেশী বাণিজ্য ঘাটতি। ভারতের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি ১৭৮৪ মিলিয়ন ইউরো (আমদানী ১৯৭৪ মিলিয়ন , রপ্তানী ১৯০ মিলিয়ন) ও অপর প্রতিবেশী মায়ানমারের সাথে ঘাটতি ৪৫ মিলিয়ন ইউরোর (আমদানী ৫০ মিলিয়ন, রপ্তানী ৫ মিলিয়ন)। চিনের সাথে সর্বোচ্চ ঘাটতি ২৪৫১ মিলিয়ন ইউরোর (আমদানী ২৫২২ মিলিয়ন ও রপ্তানী ৭১ মিলিয়ন)। ১৫টি দেশের একটা চার্ট দিলাম –

auto

তবে এ থেকে পরিষ্কার বোঝা সম্ভব নয় কোন দেশের সাথে বাণিজ্য কতটা একমুখী (অর্থাৎ আমদানী-নির্ভর)। এজন্য আমি এই দেশগুলোর সাথে বাংলাদেশের মোট বাণিজ্য ও তাতে ঘাটতির অনুপাত হিসাব করলাম। এই হিসাবেও দেখা যায় অধিকাংশ এশিয়ান দেশের সাথেই বাংলাদেশের ঘাটতির অনুপাত ৫০% – এরও বেশী – অর্থাৎ ১০০ টাকা বাণিজ্য হলে ৫০ টাকা ঘাটতি। এরকম দেশের মধ্যে শিল্পোন্নত জাপান বা কোরিয়া যেমন আছে, উন্নয়নশীল ভারত-চিন-থাইল্যান্ড আছে তেমন স্বল্পোন্নত মায়ানমার বা নেপালও আছে। এদের সবার ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি অনুপাত ৫০ এরও বেশী, কার্যত নেপাল ছাড়া বাকিদের ক্ষেত্রে এই অনুপাত ৮০-র ও বেশী। আমি আমদানী নির্ভরতার একটা ইনডেক্স বানিয়ে তাতে দেশগুলোকে ক্রমাণ্বয়ে সাজালাম। সবার ওপরে আসে উজবেকিস্তান – যারা বাংলাদেশে ২৬৯ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের রপ্তানী করেছেন, অথচ আমদানী করেছেন মাত্র ২ মিলিয়ন মূল্যের সামগ্রী। এর পরে একে একে আসে যথাক্রমে কুয়েত, চিন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, কাতার, তুর্কমেনিস্তান, ভারত, মায়ানমার ও জাপান।

auto

একটু গভীরে আলোচনা করি – তালিকার সবার ওপরে থাকা উজবেকিস্তানকে নিয়েই আলোচনা করা যাক। উজবেকিস্তান থেকে বাংলাদেশ মূলত তুলো কেনে বাংলাদেশের নিজস্ব টেক্সটাইল শিল্প চালানোর জন্য। উজবেকিস্তানে তুলো চাষ অনেক হলেও শ্রমিক তুলনায় কম – যা আছে বাংলাদেশে। তাই উজবেকিস্তান থেকে আমদানী করা কাঁচামাল যদি গারমেন্টস-এর আকারে পশ্চিমে যায় তাহলে দুই দেশেরই লাভ – যাকে বলে উইন-উইন সিচুয়েশন। সেইক্ষেত্রে বাংলাদেশ একতরফা বিশাল বাণিজ্য ঘাটতির সম্মুখীন হলেও এই কাঁচামাল আদপে বাংলাদেশের কাজে আসছে। তাই ঘাটতি বাণিজ্য সবসময় খারাপ নয়, যদি সেই ঘাটতি অন্য কোথাও রপ্তানী উদ্বৃত্তের কাজে আসে।

এই বাণিজ্য ঘাটতি কি চিন্তার বিষয়? আপাতত না। কারণ, মোটের ওপর বাংলাদেশের আয়-ব্যয়ের সামঞ্জস্য আছে। কিছু দেশের সাথে ঘাটতি বাড়লেও অন্য দেশের সাথে উদ্বৃত্ত বেড়ে সেই ঘাটতি পুষিয়ে যায়। তাছাড়া উজবেকিস্তানের ক্ষেত্রে যেমন দেখলাম, সেভাবে কাঁচামাল আমদানী বাড়লে সাময়িকভাবে কোনো কোনো দেশের সাথে একতরফা আমদানী-সম্পর্ক তৈরী হতেই পারে। এগুলোতে সমস্যা নেই। সহজভাবে ভাবলে এক ব্যক্তি অফিসে কাজ করে মাইনে পায় যা তার “বাণিজ্য-উদ্বৃত্ত”, আর সে যে যে দোকানে গিয়ে জিনিস কেনে তাদের সাথে তার “বাণিজ্য-ঘাটতি” – মোটের ওপর হিসাব নিয়ন্ত্রণে থাকলে চিন্তার কিছু থাকে না।

কিন্তু ভবিষ্যতের কথা মাথায় রাখলে চিন্তার কিছু কিছু কারণ আছে। প্রথমত, বাংলাদেশের রপ্তানী-বাণিজ্যের ৮০% এরও বেশী শুধুমাত্র টেক্সটাইল ও গারমেন্টস-কেন্দ্রিক। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশ ইউরোপে প্রতিদ্বন্দীদের তুলনায় কিছুটা শুল্ক-সুবিধা পায় স্বল্পোন্নত দেশ হিসাবে। ভবিষ্যতে এই সুবিধা না থাকলে এই শিল্পের সমস্যা তৈরী হতে পারে। একইভাবে, কাঁচামালের যোগানে সমস্যা সৃষ্টি হলেও রপ্তানী মার খেতে পারে। তবে বিগত কিছু বছরের ট্রেন্ড থেকে মনে হয় না এরকম সমস্যা তৈরী হতে পারে।

দ্বিতীয়ত বিশ্ব-বাণিজ্যের ভরকেন্দ্র যে আস্তে আস্তে এশিয়ার দিকে সরে আসছে তা সব অর্থনীতিবিদেরাই বলছেন। এশিয়ার সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কিছু কিছু উদ্বৃত্তে না পরিণত করতে পারলে ভবিষ্যতে সমস্যা হতে পারে – কারণ পশ্চিমের বাজার এশিয়ার মত অত দ্রুতহারে ক্রমবর্ধমান নয়। সেক্ষেত্রে বাণিজ্য ঘাটতি ক্রমাগত বেড়েই চলবে। এশিয়ার দেশগুলোতে পশ্চিমের মত শস্তাশ্রমের অভাব নেই, তাই শ্রমঘন শিল্প ছাড়াও অন্যান্য দক্ষতাভিত্তিক শিল্পখাতে উন্নতি করতে হবে।

তৃতীয়ত বাংলাদেশে রপ্তানীমুখী শিল্পের বিকাশ ঘটাতে হবে। সন্দেহ নেই এটা অত সহজে হবে না, কারণ বাংলাদেশে কাঁচামালের প্রাপ্যতার সমস্যা আছে। তাও পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশ সিঙ্গাপুরে ৩৫ মিলিয়ন ইউরো, মালয়েশিয়ায় ২৫ মিলিয়ন ইউরো থাইল্যান্ডে ২৪ মিলিয়ন ইউরো এবং মায়ানমারে ৫ মিলিয়ন ইউরো মূল্যের সামগ্রী রপ্তানী করেছে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে দূরত্বের নিরিখে এই চারটে দেশই বাংলাদেশের প্রতিবেশী-তুল্য। এবং এদের জিডিপি ও বৈদেশিক বাণিজ্যের পরিমাণও যথেষ্ট বেশী। তা সত্ত্বেও বাংলাদেশের রপ্তানী-ব্যর্থতা চোখে পড়ার মত। একই ভাবে, সংযুক্ত আরব আমীরশাহী, কুয়েত ও কাতারে বাংলাদেশের রপ্তানীর পরিমাণ যথাক্রমে ৪১, ৫ ও ৪ মিলিয়ন ইউরো। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো তেল ও গ্যাস রপ্তানী করে প্রায় বাকি সবই আমদানী করে। আবার এই দেশগুলোতে প্রচুর সংখ্যায় বাংলাদেশী কর্মরত। তাই এখানেও বাংলাদেশের রপ্তানী-ব্যর্থতা চোখে পড়ে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার চারটি দেশে ভারতের রপ্তানী যথাক্রমে ৩৬৬৯, ১৭২৫, ১১২৮ ও ১৫০ মিলিয়ন ইউরো। আর মধ্যপ্রাচ্যের তিনটি দেশে রপ্তানী হল ১৪৭৬২, ৫১৪ ও ৪২৯ মিলিয়ন ইউরো। এশিয়া-মুখী বাণিজ্যে বাংলাদেশকে আরও দ্রুত রপ্তানী বাড়াতে হবে, এটাই বোঝা যায়।

রপ্তানীমুখী শিল্পের বিকাশের জন্য দেশে বিনিয়োগের দরকার। বিশ্বব্যাঙ্কের ঋণ দিয়ে কিছু পরিকাঠামো গড়া যায় বটে কিন্তু বৈদেশিক বিনিয়োগই এশিয়ার বিভিন্ন দেশগুলোকে উন্নতির পথে ঠেলেছে। এখানে সমস্যা হল রাজনৈতিক। বিনিয়োগকারী বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য বেশী ঝুঁকি নিচ্ছে, তাই তারা বেশী সুযোগসুবিধা চাইবে – যা নিয়ে বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরী হয়। অথচ শিল্পায়নে বিনিয়োগের বিকল্প নেই। দেশের আয়-উদ্বৃত্ত দিয়ে যদি পরিকাঠামো তৈরী হয় তাহলে টাকার বিনিময়মূল্য নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়বে। রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প অবশ্যই ভাল – কিন্তু কয়েকটি সেক্টর ছাড়া (যেমন মাইনিং, এগ্রো-বেসড) পৃথিবীতে সফল রপ্তানীমুখী রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পের উদাহরণ খুবই কম। তাছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প অধিকাংশ সময়েই একচেটিয়া বাণিজ্যের অধিকার পায় যার ফলে দ্রুত স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির পীঠস্থান হয়ে ওঠে। এশিয়ার শিল্পোন্নত কিছু দেশ (জাপান, কোরিয়া) থেকে বিনিয়োগ আনতে পারলে ভাল ছাড়া খারাপ কিছু হয় না, বিনিয়োগকারীরা নিজেরাই লবি করে ওইসব দেশে বাংলাদেশের জন্য বাণিজ্য সুবিধা করে দেবে।

শেষের কথায় আসি। রপ্তানীমুখী শিল্পের দরকার আছে ঠিকই, কিন্তু সেখানেও একটা প্রশ্নচিহ্ণ রেখে দেওয়া ভাল। রপ্তানীমুখী শিল্পের মাধ্যমে উন্নয়নের সবথেকে ভাল মডেল হল চিন। কিন্তু দেশে শিল্প গড়তে গিয়ে দেশের মধ্যে যে পরিমাণ দূষণের সম্মুখীন হতে হয় তার উদাহরণও চিন থেকে পাওয়া যায়। একইভাবে ভারতে শিল্প গঠনে জমি অধিগ্রহণের সময় একাধিক মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা থেকে বোঝা যায় বাংলাদেশেও শিল্পের বিকাশ অতটা সহজে হবে না। শুধু তাই নয়, চিন যেমন জাতিসংঘে ও বিশ্ব-দরবারে নিজের প্রভাব খাটিয়ে অনুন্নত দেশগুলো থেকে কাঁচামাল আমদানী করে, সেটাও বাংলাদেশের পক্ষে অতটা সহজ না-ও হতে পারে। তাই শিল্প ছাড়াও সেবা বা সার্ভিসেস সেক্টরে জোর দেওয়া দরকার। সেবা-খাতে সুবিধা হল এখানে প্রবৃদ্ধির জন্য মেধা-সম্পদ ছাড়া আর কোনো কাঁচামালের প্রয়োজন পড়ে না, পরিবেশ দূষণের সম্ভাবনাও অনেক কম (একমাত্র ব্যবহৃত বিদ্যুতের জন্য যতটা)। এর পরে রেমিট্যান্স ও শ্রমিক-রপ্তানী। এই খাতে বাংলাদেশের বর্তমান সাফল্যও চোখে পড়ার মত। তবু, পরিসংখ্যানের কথায় বলি, ২০১০ সালের বাংলাদেশের শ্রমিক-পিছু রেমিট্যান্সের পরিমাণ ২০৮৪ ডলার যেটা ভারতের ক্ষেত্রে ৪৮৬৭ ডলার। তাই, শ্রমিকদের দক্ষতা বাড়ানোর কাজে সরকারী উদ্যোগ চাই, যাতে একই সংখ্যক শ্রমিক আরো বেশী রেমিট্যান্স পাঠাতে পারে, সেই সাথে বেশী শ্রমিক পাঠাবার উদ্যোগও জারী রাখতে হবে। বাণিজ্যের ভবিষ্যত হল বিশ্বায়ন ও মুক্তবাণিজ্যের হাত ধরে – মুক্তবাণিজ্যের বিশ্বে সাফল্যের জন্য দক্ষতা ও পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই।