Archive for the ‘ব্যবসা’ Category

অ্যাডাম স্মিথের দৃষ্টিতে উপনিবেশ-অর্থনীতি

ডিসেম্বর 25, 2012

ঔপনিবেশিকতা নিয়ে পড়াশোনা করতে গিয়ে দেখলাম বিশ্বখ্যাত অর্থনীতিবিদ অ্যাডাম স্মিথের বই দ্য ওয়েলথ অব নেশনশে (১৭৭৬) ঔপনিবেশিকতা ও তার অর্থনীতি নিয়ে আলোচনা আছে। অ্যাডাম স্মিথের লেখা বইটিকে আধুনিক অর্থনীতির জনক বলা যায়। বইতে কলো্নী সংক্রান্ত অর্থনীতি নিয়ে আলোচনার সময় মাথায় রাখা দরকার যে অ্যাডাম স্মিথ ঔপনিবেশিকতার তীব্র বিরোধী ছিলেন। কিন্তু তার বিরোধিতা মানবিকতা বা অধিকারের প্রশ্নে নয়, নিতান্তই অর্থনীতির প্রশ্নে। যদিও তার বইতে তিনি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীকে বরাবর দায়ী করেছেন বাংলার দুরাবস্থার জন্য, কিন্তু তার অর্থনীতির ফোকাস থেকে সরে যান নি। তিনি বইতে দেখানোর চেষ্টা করেছেন ঔপনিবেশিকের জন্যও কলোনী-ব্যবস্থা লাভজনক নয় ও দীর্ঘমেয়াদে যে দেশগুলো ঔপনিবেশিক হবে না, তারা অন্যেদের থেকে অর্থনৈতিকভাবে অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে।

উপনিবেশের সাথে ইউরোপের ব্যবসা দু’ভাবে দেখছেন স্মিথ। প্রথমটা শুধুমাত্র ব্যবসার সম্পর্ক – যাতে ইউরোপীয়রা লাভ করছে। বর্তমান উপনিবেশেরা কেউই খুব একটা শিল্পোন্নত নয়, তাই সেই দেশগুলো থেকে কাঁচামাল সংগ্রহ করা ও শিল্পজাত পণ্য বিক্রি করার কাজটা ইউরোপীয়রা ভাল-ভাবেই করছে। এই ব্যবসায় লাভ এতটাই হচ্ছে যে তার ফলে মুদ্রার অপর পিঠ দেখা হচ্ছে না। মুদ্রার অপর পিঠ ক্ষতিকর – সেটা হল একচেটিয়া বাণিজ্য। একচেটিয়া বাণিজ্য ঔপনিবেশিকের জন্য ক্ষতিকর। কারণ কি?

স্মিথের মতে ঔপনিবেশিকেরা একে অপরের সাথে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এই একচেটিয়া বাণিজ্যের সুবিধাটুকু হারিয়ে ফেলে। ইংল্যন্ডের পক্ষে তুলো আনা সহজ বলে ইংল্যান্ড টেক্সটাইলের ক্ষেত্রে বেশী দাম চাইতে যেমন পারে, তেমন ইন্দোনেশিয়ার মালিক ডাচেরা মশলার জন্য বেশী দাম চাইছে। উভয়ের কারও সকল সম্পত্তির ওপর যেহেতু অধিকার নেই, তাই স্থানীয় ভোগের ক্ষেত্রে ছাড়া ইউরোপে রপ্তানীর ক্ষেত্রে লাভ-লোকসান মোটের ওপর শূন্যে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে। এ তো গেল প্রথম সমস্যা। এর পরের সমস্যা হল শিফট অব ক্যাপিটাল বা মূলধনের সরণ। স্মিথের মতে মূলধনের স্বভাবই হল কম লাভজনক ব্যবসা থেকে সরে বেশী লাভজনক ব্যবসায় চলে যাওয়া। ঔপনিবেশিকের ঘরোয়া বাজারের মূলধন ইউরোপীয় বাণিজ্য থেকে সরে কলোনী বাণিজ্যে চলে যাবে – যা দীর্ঘমেয়াদে দেশকে ইউরোপীয় বাণিজ্যে দুর্বল করে দেবে। যদি ভবিষ্যতে কখনো কলোনী-বাণিজ্য অনিশ্চিত হয়ে পড়ে তাহলে ঔপনিবেশিকের অনেক পরিশ্রম করে গড়ে তোলা কলোনী বাণিজ্য থেকে মূলধন আবার সরিয়ে আনা শক্ত হবে। এই একচেটিয়া বাণিজ্য বিষয়ে স্মিথের একটা পর্যবেক্ষণ ও একটা ভবিষ্যতবাণীর উল্লেখ না করে পারছি না। স্মিথের মতে ইউরোপে নৌশক্তি ও ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্পে অগ্রণী ছিল স্পেন ও পর্তুগাল। সেইমত তারাই প্রথম কলোনী-বাণিজ্যে নামে। কিন্তু স্মিথের মতে, দক্ষিণ আমেরিকাকে কলোনী বানাবার পরে এই দুই দেশের বাণিজ্য এদের উপনিবেশের পথ ধরে মূলত কৃষিভিত্তিক হয়ে পড়ে। তাই ধীরে ধীরে তাদের ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প মার খাবে ও ফলশ্রুতিতে নৌশক্তিও দুর্বল হয়ে পড়বে। অন্যদিকে গরিব ডেনমার্ক (তৎকালীন ডেনমার্ক ও নরওয়ে) বা সুইডেন (বর্তমানের সুইডেন ও ফিনল্যান্ড) – যাদের অর্থনীতি বাকিদের তুলনায় দুর্বল বা জার্মানী – যার নৌশক্তি সীমিত – তারা তাদের মূলধনের সর্বোত্তম ব্যবহারে (ইউরোপমুখী বাণিজ্য) মনোযোগ দেবে ও কখনও কলোনী বাণিজ্য বিপন্ন হলে এরা ঔপনিবেশিকদের তুলনায় অনেক দ্রুত উন্নতি করবে।

আমি ১৮৭০ সালে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মাথাপিছু গড় আয়ের সাথে বর্তমানের বিভিন্ন দেশের গড় আয়ের একটা তুলনা দিলাম। তালিকা (ব্র্যাকেটে র‌্যাঙ্ক) থেকে স্পষ্ট, স্পেন ও পর্তুগাল তাদের প্রাথমিক ঔপনিবেশিক সুবিধা হারিয়েছে সেই উনিশ শতকের গোড়ায় লাতিন আমেরিকার ওপর থেকে দখল উঠে যাওয়ায়। ব্রিটেন, ফ্রান্স ও হল্যান্ড আছে মাঝে আর ওপরে আছে সুইডেন, নরওয়ে ও ডেনমার্ক – ঠিক যেমনটা বলেছিলেন স্মিথ। জার্মানীর ক্ষেত্রে বিষয়টা ততটা খাটে নি, হয়ত পূর্ব-জার্মানীর কারণে। ১৭৭৬ সালে বসে উপনিবেশ-উত্তর পৃথিবীর অর্থনীতি সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করার মত একটা শক্ত পরীক্ষায় স্মিথ উত্তীর্ণ। আগের লেখায় আমি দেখিয়েছিলাম উপনিবেশ-উত্তর যুগে উপনিবেশগুলোর তুলনায় ঔপনিবেশিকেরা অনেক দ্রুত উন্নতি করেছে। আসলে, যারা উপনিবেশ-ব্যবসায় নামে নি অথচ মুক্ত-বাণিজ্যে নাম লিখিয়েছে, তারা আরও তাড়াতাড়ি উন্নতি করেছে।

ব্রিটেন – ৩১৯০(১), ৩৭৭৮০(৭)
স্পেন – ১২০৭(৭), ৩০৯০০(৮)
পর্তুগাল – ৯৭৫(৯), ২১২৫০(৯)
ডেনমার্ক – ২০০৩(৩), ৬০৩৯০(২)
নরওয়ে – ১৩৬০(৬), ৮৮৮৯০(১)
সুইডেন – ১৬৬২(৫), ৫৩২৩০(৩)
নেদারল্যান্ডস – ২৭৫৭(২), ৪৯৭৩০(৪)
ফিনল্যান্ড – ১১৪০(৮), ৪৮৪২০(৫)
জার্মানী – ১৮৩৯(৪), ৪৩৯৮০(৬)

তবে এ সব সত্ত্বেও স্মিথ বলেছেন, একচেটিয়া বাণিজ্যের ফলে আপেক্ষিক ক্ষতির তুলনায় হয়ত বর্তমান কলোনী-বাণিজ্য বস্তুটা বেশী লাভজনক। কিন্তু আসল লোকসান অন্যখানে। এই একচেটিয়া বাণিজ্য চালিয়ে যেতে গেলে যে সামরিক শক্তিতে যে পরিমাণ বিনিয়োগ করতে হয় সেই খরচা একচেটিয়া বাণিজ্য থেকে আসা লাভের তুলনায় অনেক বেশী। ১৭৩৯ সালে শুরু হওয়া ইঙ্গ-স্প্যানিশ যুদ্ধের উদাহরণ টেনে বলেছেন – এটা যেন গুপ্তধনের সন্ধান পাওয়া দুইদল দস্যুর লড়াই। লড়াই শেষে উভয়েই ভাগ-বাঁটোয়ারায় সম্মত হল বটে – কিন্তু ততক্ষণে তাদের অনেক শক্তিক্ষয় হয়েই গেছে। মুক্ত-বাণিজ্যের পরিবর্তে একচেটিয়া বাণিজ্যে যে বাড়তি লাভ হচ্ছে তার থেকে অনেক বেশীই ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে সাম্রাজ্য বজায় রাখতে। এরপরে উপনিবেশগুলো চিরকাল ঔপনিবেশিক শাসন মেনে নেবে এমনটা ভাবারও কোনো কারণ নেই, তাদের স্বাধীনতা ঘোষণার সাথেই ঔপনিবেশিকদের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে হবে। শুধু এখানেই শেষ না, এই বাড়তি সামরিক শক্তি ও সাম্রাজ্য বজায় রাখতে যে দক্ষ মানব-সম্পদ ব্যবহার হচ্ছে তারা অন্য কোনো অধিকতর উৎপাদনশীল খাতে (স্মিথের মতে ম্যানুফ্যাকচারিং) সময় বিনিয়োগ করতে পারত। সবশেষে, একচেটিয়া বাণিজ্য ও তার নিমিত্ত সামরিক শক্তি – এই দুই খাতে বেশী মনোযোগী হওয়ায় সরকারের পক্ষে নাগরিকদের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার দিকে নজর দেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না। লবি অব শপ-কিপার্স কার্যত সরকার চালাচ্ছে – দেশের অন্যান্য শ্রেণীর মানুষ সমান সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

ঔপনিবেশিকতার ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরার পরেও স্মিথের ব্যাখ্যা থেমে থাকে নি। ইংল্যান্ড কি তাহলে উপনিবেশগুলোকে স্বাধীন করে দেবে? স্মিথ বলেছেন – ব্যাপারটা অত সহজ না। কার্যত এটাই আদর্শ হলেও ইতিহাসে কোনো দেশই স্বেচ্ছায় কোনো দেশই সূচ্যাগ্র মেদিনীও ছেড়ে দেয় নি, তার জন্য যত ক্ষতি বা কষ্টই স্বীকার করতে হোক না কেন। কারণ এই বিষয়টা দেশের গৌরবের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত আছে, আর সাধারণ মানুষ চাইলেও দেশের শাসক শ্রেণীর কাছে দেশের গৌরব বিষয়টার মূল্য অপরিসীম। আমার ব্যক্তিগত উপলব্ধিতেও বুঝেছি যে সাম্রাজ্যবাদের মূলকথা আসলে এইখানেই। নিজের অধীনস্থ মানুষ বা অঞ্চলের পরিমাপের মাধ্যমে মানুষের শূন্য আত্মগৌরবের জন্ম, যা বিবর্তনীয় ইতিহাসের পথে অন্যান্য জীবের মধ্যেও পরিলক্ষিত হয়। এর সন্ধানেই সাম্রাজ্যবাদের পেছনে ছোটে দেশ, শাসক বা রাষ্ট্র – তাতে দেশের লাভ হতে পারে, লোকসানও হতে পারে।

মুক্তবাণিজ্যের সমর্থক স্মিথ এরপরে বর্ণনা দিয়েছেন কি ভাবে উপনিবেশের সাথে সুসম্পর্ক রেখে শুধু মুক্ত-বাণিজ্য চালানোই দেশের লক্ষ্য হওয়া উচিত। ট্যাক্স-অনুপাতে ভোটাধিকার দিয়ে একটা আন্তর্জাতিক পার্লামেন্ট তৈরীর প্রস্তাবও আছে। সবেমিলে, স্মিথের লেখায় আমি এমন অনেক সামগ্রী পেলাম যা ১৭৭৬ সালে লেখা কোনো বইতে পাব বলে ভেবে দেখিনি। আগ্রহী পাঠকেরা বইটার ফ্রি-পিডিএফ ভার্সান, সংক্ষেপিত যে কোনো ভার্সান বা ওই সংক্রান্ত আর্টিকেল পড়ে দেখতে পারেন। অর্থনীতি নিয়ে বিন্দুমাত্র আগ্রহ থাকলে বলেই দিতে পারি – হতাশ হবেন না।

পড়ে দেখতে পারেন –
১) বইটার পিডিএফ
২) সাম্রাজ্যবাদ দিয়ে লেখার সংক্ষেপ
৩) ইউরোপের কিছু দেশের মাথাপিছু আয়ের গুগল-চার্ট

ফুরান্তিস বনাম অফুরান্তিস

ডিসেম্বর 25, 2012

পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাবে – এরকম প্রেডিকশন বোধহয় একমাত্র মায়া-সভ্যতার অবদান নয়। আদি-অনন্তকাল ধরেই ভিন্ন ভিন্ন মাত্রায় বিভিন্ন সভ্যতায় এই ভবিষ্যতবাণী ব্যবহার হয়ে আসছে। মানব-সভ্যতা ধ্বংস হয়ে যাবার কথা আসে ঐ হাত ধরেই। তবে আজকাল বিজ্ঞানীরাও মাঝে মাঝে বলেন অমুক সালে অমুক জায়গায় দু’চারটে উল্কা পড়ে পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। কিন্তু যখন একজন অর্থনীতিবিদ বা সমাজ-বিজ্ঞানী বলেন সভ্যতার শেষের কথা তখন তিনি ঠিক কি বোঝাতে চান?

পৃথিবীর সম্পদ সীমিত অথচ মানুষের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। এর ওপর ভিত্তি করে এক শ্রেণীর অর্থনীতিবিদ অনেকদিন ধরেই বলে আসছেন যে একটা সময় আসন্ন যখন অর্থনীতির “গ্রোথ” ঋণাত্ত্বক হয়ে যাবে – অর্থাৎ জীবনযাত্রার মান আর বাড়বে না। এই যেমন এখন চারদিকে নতুন নতুন বাড়ি-ব্রিজ-রাস্তা হচ্ছে – তেমনটা আর থাকবে না। আমি এই অর্থনীতিবিদদের দলটাকে নাম দিই ফুরান্তিস – মানে সবকিছু ফুরিয়ে যাবে, এরকমটাই তাদের মত।

অন্য আরেকটা দল আছে যাদের বক্তব্য মানব-সভ্যতার এই ক্রমোন্নতি অবশ্যম্ভাবী। স্বাভাবিক পৃথিবীতে মানুষ ঠিকই তার উন্নতির পথ খুঁজে নেবে। যদি কিছু ফুরিয়ে যায় তার বিকল্প বের করবে, বিকল্প দুষ্প্রাপ্য হয়ে পড়লে অন্য কোনো পথে সেই সামগ্রীর ব্যবহার বন্ধ করে দেবে, তাও আদম্য মানুষ ফিরে তাকাবে না। মানবসভ্যতার ইতিহাস থেকে আজ অবধি দেখলে এই কর্নুকোপিয়ানদের মতামতই সঠিক বলে মনে হয়। এদের নাম দিই অফুরান্তিস – মানে কিছুই ফুরাবার নয়, ভাবখানা এমন।

ফুরান্তিস দলের কর্ণধার হলেন ম্যালথাস। ম্যালথাস সেই ১৭৯৮ সালেই একটা মারাত্মক বই লিখে তখনকার সমাজকে নাড়িয়ে দিয়েছিলেন। তাতে তিনি দেখিয়েছিলেন জনসংখ্যার বৃদ্ধির প্রবণতা এক্সপোনেন্সিয়াল অথচ খাদ্য ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদের সরবরাহ কেবলমাত্র লিনিয়ার-গ্রোথ পেতে পারে। অর্থাৎ, কোনো সমৃদ্ধির সময়ে জনসংখ্যা কিছুদিন বাড়ার পরেই খাদ্যে ঘাটতি দেখা যাবে – সমৃদ্ধির সময়ের পরেই আসবে দুর্ভিক্ষ, বেঁচে থাকার জন্য যুদ্ধ আর মোটের ওপর ঋণাত্ত্বক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি। ম্যালথাসের নাম থেকে এই বিশেষ সময়ের নাম দেওয়া হয় ম্যালথাসিয়ান ক্যাটাস্ট্রফি

ফুরান্তিসদের বিশেষ বাড়বাড়ন্ত শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে। এই সময়ে জন্মহার কমলেও মৃত্যুর হার তার থেকেও বেশী হারে কমে যাওয়ায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার বাড়তে থাকে। পল এল্রিচ ও তার সহযোগী সিয়েরা ক্লাব ছিলেন এই দলের মানুষ। তার বইতে তিনি দাবী জানান যে সত্তরের দশকেই উন্নয়নশীল বিশ্ব দুর্ভিক্ষের পর দুর্ভিক্ষে উজার হয়ে যাবে , কারণ ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার সাথে তাল মিলিয়ে সম্পদের জোগান দেওয়া ধরিত্রীর পক্ষে অসম্ভব। এই অবস্থার উন্নতির জন্য তিনি আবার কিছু নীতি-প্রবর্তনের দাবীও জানিয়েছিলেন। তবে বলাই বাহুল্য তার এইসব ভবিষ্যতবাণীর কোনোটাই ফলে নি। ২০০৯ সালে একটি সাক্ষাতকারে তাকে যখন প্রশ্ন করা হয়, উনি বলেন ওনার উদ্দেশ্য ছিল মানবজাতিকে সতর্ক করে দেওয়া এবং উনি তাতে সফল। বর্ধিত সতর্কতার কারণেই এই যাত্রায় প্রযুক্তিতে বিনিয়োগ করে সভ্যতা গণ-মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেয়ে গেছে।

তবে ফুরান্তিসদের মধ্যে সবথেকে স্টার হলেন ক্লাব অফ রোম। চার গবেষকের একটি দল ১৯৭২ সালে এম আই টি-র ল্যাবে পাঁচ প্যারামিটারের সিমুলেশন চালিয়ে দাবী জানান ২০১২-২০২০ সাল নাগাদ কোনো এক সময়ে আমাদের অর্থনৈতিক স্থিতি একটা এমন অবস্থায় পৌঁছবে যেখান থেকে আর বৃদ্ধি সম্ভব না। যে পাঁচটি প্যারামিটার এই ক্লাব অব রোম তাদের সিমুলেশনের জন্য ব্যবহার করেছিলেন সেগুলো হল – জনসংখ্যা, শিল্পায়ণ, দূষণ, খাদ্য উৎপাদন ও প্রাকৃতিক সম্পদের আহরণ মাত্রা। সিমুলেশনে দেখা যায় প্রাথমিকভাবে এই সব প্যারামিটারই ক্রমবর্ধমান কারণ একে অন্যের সাথে সম্পর্কিত। এইভাবে, একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় পৌঁছনর পরেই শুরু হয় ভাঙণ। ক্লাব অব রোম এই বিষয়ে প্রথম জনসমক্ষে প্রকাশ করেন লিমিটস-টু-গ্রোথ নামে একটি বইয়ে। । ২০০৩ সালে প্রকাশিত একটি আপডেটে দেখা যায় ১৯৭২-২০০২ অবধি এই পাঁচটি প্যারামিটারের পরিবর্তন হয়েছে ১৯৭২ সালে তাদের ভবিষ্যতবাণী যেমন হয়েছিল – ঠিক সেইভাবে। অর্থাৎ আমরা এগিয়ে যাচ্ছি হয়ত সেই ভাঙণের পথেই। তবে তারা এও যুক্ত করেন যে প্রযুক্তির অভূতপূর্ব বিকাশের ফলে তাদের সিমুলেশনে বর্ণিত ভাঙণ হয়ত আরেকটু দেরীতে (২১ শতকের শেষের দিকে) আসবে।

অনেক তো বললাম ফুরান্তিসদের কথা, এখন বলা যাক অফুরান্তিসদের কথা। আরবানা-শ্যাম্পেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জুলিয়ান সাইমন আবার বলেন যে জনসংখ্যাকে বোঝা হিসাবে দেখার ব্যাপারটা সম্পূর্ণ ভুল। বাড়তি জনসংখ্যা আদপে প্রযুক্তিগত উন্নয়নে সাহায্য করে। আর বাজার অর্থনীতি এমনভাবে চলে যাতে কোনো দামী জিনিসের বিকল্প সস্তা কিছু বের করতে পারলে দুয়ের দামই পড়ে যায়। ব্যাখ্যাটা অনেকটা এরকম –

“জনসংখ্যা ও আয়ের বৃদ্ধি সীমিত সময়ের জন্য প্রাকৃতিক সম্পদের চাহিদা বৃদ্ধি করে দাম বাড়িয়ে দেয়। এই বাড়তি দাম ব্যবসায়ী আর আবিষ্কারকদের কাছে ইনসেন্টিভ হিসাবে কাজ করে। তারা সবাই সমাধান খোঁজার কাজে সময় ও অর্থ বিনিয়োগ করে। এদের অধিকাংশই ব্যর্থ হলেও, শেষমেষ কেউ না কেউ বিকল্প কিছু একটা বের করে ফেলে। দীর্ঘমেয়াদে বিকল্প আসায় দাম আবার আগের স্থিতিশীল অবস্থায় ফিরে যায়।” 

 

শেষ করার আগে এই সাইমন আর এল্রিচের একটা বিবাদের কথা না বলে পারছি না। এল্রিচের দাবী প্রাকৃতিক সম্পদের দাম বাড়তেই থাকবে, কারণ বর্ধিত জনসংখ্যার চাপ। সাইমনের বক্তব্য দাম বাড়লেও দীর্ঘমেয়াদে তা স্থিতিশীল হয়ে যাবে। এই নিয়ে ১৯৮০ সালে সাইমন আর এল্রিচ একটা বেটিং করেন। এল্রিচের পছন্দমত পাঁচটি খনিজ দ্রব্যের (ক্রোমিয়াম, কপার, নিকেল, টিন ও টাংস্টেন) দাম দশ বছর পরে কত দাঁড়ায় তা দেখা হবে। এই দশ বছরে যদি দাম বেড়ে যায় তাহলে সাইমন এল্রিচকে বর্ধিত দামের সমানুপাতে “ক্ষতিপূরণ” দেবেন। উলটো হলে এল্রিচ দেবেন সাইমনকে। দশকের শেষে দেখা গেল সবাইকে অবাক করে শেষ হাসি হেসেছেন সাইমন, উনি পকেটস্থ করলেন ৫৭৬ ডলার। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ এর মধ্যে পৃথিবীর জনসংখ্যা বেড়েছিল ৮০০ মিলিয়ন। অথচ পাঁচটি অবশ্য প্রয়োজনীয় খনিজের দাম গড়ে বাড়ল না। পাঁচটির প্রত্যেকটিই দামে কমে গেল। এবং সাইমনের কথাই সত্যি হল। ১৯৮০ সালে বসে যে কেউ হয়ত বলে দিতে পারত কপারের দাম এক দশক পরে বেড়ে যাবে, কারণ তখন কমিউনিকেশন নেট-ওয়ার্কের জন্য অবশ্য-প্রয়োজনীয় ছিল কপার। কিন্তু সেই দশকের মাঝে একবার অপটিক ফাইবার নেটওয়ার্ক বাজারে চলে আসার পরে আর কপারের প্রয়োজনীয়তা আগের মত রইল না। বাজারের চাহিদার সাথে দামও ঝটপট পড়ে গেল।

জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিষয়ক প্যানেলের মতে ২১ শতকে জনসংখ্যা “পিক” করবে, অর্থাৎ পরের শতাব্দীতে জনসংখ্যা কমতে থাকবে। তাছাড়া জনসংখ্যাকে এখন আর কেউ সেরকমভাবে “থ্রেট” বলে মনে করে না। এখন যখন খবরে মাঝে মাঝে পড়ি খনিজ তেল অর্থাৎ পেট্রোলিয়াম আর কত বছর পরে ফুরিয়ে যাবে তখন মনে হয় আমি কি জীবদ্দশায় পেট্রোলিয়াম-উত্তর যুগ দেখে যেতে পারব? ফুরান্তিস না অফুরান্তিস – কে হবেন জয়ী? খেয়াল রাখুন, ফুরান্তিসদের কিন্তু একবার জয়ই যথেষ্ট আর অন্যদিকে অফুরান্তিসদের জয়ী হতে হবে বারে বারে, মানবসভ্যতার উন্নয়নের পতাকা তুলে রাখতে।

ইউরোর চাবিকাঠি জার্মানীর হাতে

ডিসেম্বর 25, 2012

ইংল্যান্ডের উত্তরের গ্রামগুলোতে গবাদি পশু চরে বেড়ানোর জন্য নির্দিষ্ট স্থান থাকত – যা ছিল সবার জন্য উন্মুক্ত – অর্থাৎ কমন প্রপার্টি। নিজের স্বার্থের কথা ভেবে সব মালিকই চাইত আরও বেশী করে গবাদি পশু চারণ করে বেশী লাভের টাকা ঘরে তুলতে, স্বভাবতই নিজেদের জমি ব্যবহার না করে ওই কমন-প্রপার্টিই ব্যবহৃত হত চারণের জন্য। কিন্তু একসময় দেখা দিল বিপর্যয়, ঘাস গজানোর তুলনায় গবাদি পশুর খেয়ে ফেলার হার বেড়ে গেল, ফলে গবাদি পশুর খাওয়ার জায়গা ফুরোলো। এই থট-এক্সারসাইজ থেকেই একটা সুন্দর তত্ত্বের উদ্ভব। ট্র্যাজেডি অব কমনস শেক্সপিয়ারের লেখা আরেকটি উপন্যাস নয়, বরং একটি তত্ত্ব যার প্রভাব বর্তমান পৃথিবীতে হরহামেশাই চোখে পড়ে।

গ্যারেট হার্ডিন নামে এক বিজ্ঞানী সায়েন্স পত্রিকায় প্রথম প্রকাশ করেন এই নামটা, কিন্তু এর প্রভাব চলে আসছে এর অনেক আগে থেকেই। মূল বক্তব্য হল, যে সম্পদ সর্বসাধারণের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত, সকলেই তার সর্বাধিক ব্যবহারের চেষ্টা করে। আর এই ধরণের সম্পদের যথেচ্ছ ব্যবহার খুব দ্রুত সামগ্রিক বিপদ ডেকে আনতে পারে। সেই “সম্পদ” কখনও বঙ্গোপসাগরের মাছ, কখনও রাস্তা (একটা কার্টুন দেখে বুঝতে পারেন), কখনো সামগ্রিক পরিবেশ। আরও উদাহরণ দিলে গণতান্ত্রিক দেশে সরকারী সম্পত্তি একইভাবে ট্র্যাজেডি অব কমনসের শিকার, রাষ্ট্রায়াত্ত শিল্পের পতনের পেছনে অনেকাংশেই একই তত্ত্ব কাজ করে। অর্থনীতিও ব্যতিক্রম নয়। আর সাম্প্রতিক ইউরোপীয় অর্থনীতির পতনে আমি এই ট্র্যাজেডি অব কমনসের ছায়া দেখতে পাই।

ষাটের দশকে ইউরোপের ছয়টি দেশ মিলেজুলে নিজেদের অর্থনীতি থেকে সীমারেখা মুছে দিতে চেয়েছিল। তাদের সেই প্রচেষ্টার সফল রূপায়ণ ঘটে ১৯৯৩ সালে, যখন ইউরোপীয় ইউনিয়ন তৈরী হয়। আরো বছর দশেকের মধ্যেই ইউনিয়নের সদস্য বেড়ে দাঁড়ায় ২৭-এ। ইউনিয়ন গঠনের কেন্দ্রীয় চালক ছিল অভিন্ন মুদ্রা ইউরোর প্রবর্তন – যার ফলে এক ছাতার তলায় আসতে পেরেছিল ইউরোপের ছোটো-বড় দেশগুলো। স্বাভাবিক ভাবেই এক ছাতার তলায় আসায় গ্রীসের মত দেশে বিনিয়োগের ঝুঁকি কমে যায়, যার ফলে ঋণ-সংগ্রহে সুদের হারও কমে যায়। এইটা খুব স্বাভাবিক ঘটনা। আপনি যদি কোনও ব্যক্তিকে ঋণ দিতে চান তাহলে যা ঝুঁকি, একটা গোষ্ঠীকে দিতে চাইলে স্বাভাবিকভাবেই তার চেয়ে কম ঝুঁকি – কারণ আপনি স্বাভাবিকভাবেই আশা করবেন গোষ্ঠীর মধ্যে কিছু লোক থাকবেই যারা ঋণ ঠিকঠাক কাজে লাগাবে ও শেষমেষ আপনার টাকা শোধ করে দেবে। অর্থনীতির প্রথম ধাপে, এভাবেই গ্রীস, ইতালী, পর্তুগাল বা স্পেনের মত দেশ অনেক ঋণ নিয়ে দেশে বিনিয়োগ করল – স্থানীয় অর্থনীতিতে জোয়ার এল।

উল্টোদিকে, ফ্রান্স বা জার্মানীর মত দেশও লাভবান হল। তাদের রপ্তানী বাজার রাতারাতি বড় হয়ে গেল। এদের মধ্যে বিশেষত জার্মানীর জিডিপি সম্পূর্ণ রপ্তানীমুখী। রপ্তানী বাড়ায় উৎপাদন বাড়ল, তাছাড়া বিশেষত চিনে জার্মান মেশিনারীর বিশেষ চাহিদা দেখা দেওয়ায় জার্মানীর অর্থনীতি ফুলে-ফেঁপে উঠল। জার্মানীর বাণিজ্য-উদ্বৃত্ত বাড়তে থাকল। এই উদ্বৃত্ত টাকা ঋণের মাধ্যমে জমা হতে থাকল ওই দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলোতে। জার্মানী ইউরোর পূর্ণ সদব্যবহার করল – একদিকে তাদের ঋণের টাকায় দক্ষিণ ইউরোপের ক্রেতারা জিনিস কিনতে থাকল, অন্যদিকে সময় গেলে তাদের অর্থনীতি আরও বেশী দক্ষ হয়ে উঠতে থাকল।

এদিকে ঋণের টাকা একেক-দেশ একেক-ভাবে ব্যবহার করেছে। স্পেনে আমেরিকার মত রিয়েল এস্টেট বুদবুদ তৈরী হয়েছে, গ্রীসে সরকারী কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি পেয়েছে বহুগুণ। গ্রীসের ঋণ এতটাই বেড়ে গেল যে ইউরো শুরুর সময় মাস্ট্রিক্ট চুক্তিও(৩%-এর কম ঘাটতি) বছরের পর বছর অগ্রাহ্য করতে থাকল। গ্রীসের সাথে তুরস্কের দীর্ঘ-বিবাদের ফলে গ্রীস আয়ের বড় অংশ খরচা করেছে মারণাস্ত্রের পেছনেও। মজার কথা, এই আমদানীর বড় অংশই এসেছিল জার্মানী থেকেই। মূলধন হাতে পেয়ে দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলোর লেবার-কস্ট বাড়তে থাকল, অর্থাৎ তাদের রপ্তানী বাড়ার সম্ভাবনা কমে যেতে থাকল।

যে আশা নিয়ে এক-ইউরোর যাত্রা শুরু হয়েছেল, বছর দশেকের মধ্যেই তার মধ্যে পরিষ্কার ফাটল দেখা দিল। যে কমন-পুল-অব-রিসোর্স ছিল, তার অদক্ষ ব্যবহার শুরু হল। জার্মানী যতই বাণিজ্য উদ্বৃত্ত বাড়ালো গ্রীস, ইতালী ও স্পেনের ঘাটতি বাড়তে থাকল। এই অবস্থায় গোদের ওপর বিষফোঁড়া হয়ে এল আমেরিকায় অর্থনৈতিক দুর্যোগ – যার শুরু হল রিয়েল এস্টেট বাবলের হাত ধরে। দুর্যোগের মূল কারণ যেহেতু ছিল অত্যাধিক ও সহজলভ্য ঋণ, বিপর্যয়ের পরে সব ব্যাঙ্কই ঋণ দেওয়ার আগে দশবার ভাবতে শুরু করল। যে অর্থনীতিগুলোর অবস্থা ততটা ভাল ছিল না, অর্থাৎ যারা সামর্থ্যের বেশী ঋণ নিয়ে রেখেছিল – তাদের কপাল পুড়ল। তবে বলে রাখা ভাল, গ্রীসের ক্ষেত্রে অত্যধিক ঋণের জন্য দায়ী যেমন সরকার – স্পেনের ক্ষেত্রে কিন্তু মর্টগেজ আর রিয়েল এস্টেট বাবল মূল ঋণ-গ্রহীতা। অর্থাৎ স্পেন সরকার চুক্তি মেনে চলেও ঋণের বোঝায় ডুবে গেছে। এই অবস্থায় ব্যাঙ্ক সব জায়গায় ঋণে সুদের হার আর সমান রাখল না – দুর্বলতর অর্থনীতিতে ঝুঁকি যতই বাড়তে থাকল, সুদের হারও তেমন চড়চড় করে উঠতে শুরু করল। স্পেনে যারা বাড়ি কিনেছিল – তাদের ধার শোধ করা আরও শক্ত হয়ে গেল।

এই অবস্থায় সোজাসাপটা পথ দুটো – প্রথমটা হল খরচা কমিয়ে দেওয়া। খরচা কমানোর মানে বাজার কমে যাওয়া, মানে মন্দা – এদিকে মন্দা তো ২০০৮ থেকেই চলছে। যার মানে মন্দা আরো জাঁকিয়ে বসবে। এর মানে স্পেন, ইতালী, পর্তুগাল বা গ্রীসে আরো বেশী লোকে ধার শোধ করতে পারবে না। মন্দার মানে রাজনৈতিক অশান্তি – মানে বাজার থেকে আরও বিনিয়োগ বেরিয়ে যাবে, অর্থাৎ আরও মন্দা। অন্য পথটা হল খরচা না কমানো। কিন্তু এর মানে হল আরো বড় সমস্যার দিকে এগিয়ে যাওয়া। সব দেশেরই ঋণভার বেড়ে চলেছে – এভাবে চললে আরও ঋণভার বাড়বে, কারণ ঋণ কমানোর কোনও দায় থাকবে না। আস্তে আস্তে সবাই মিলে ডুববে একই সমুদ্রে। অনেকেরই মনে হতে পারে, জার্মানীই সবথেকে সুবিধাজনক অবস্থায় আছে ইউরোপীয় অর্থনীতিতে। কথাটা সত্যি হলেও তাদেরও হাত-পা বাঁধা। হঠাৎ করে তাদের মুখ্য বাজারে মন্দা দেখা দিলে তাদের অর্থনীতিতে আরও বড় ধাক্কা দেখা দেবে – তা নিয়ে কারও দ্বিমত থাকার কারণ নেই। তাছাড়া, এককালীন ঋণ-ডিফল্টে তাদের দুই ট্রিলিয়ন ডলার গচ্চা যাবে বলেও মনে করা হচ্ছে। তাই চাইলেও জার্মানী ডিভোর্স পাচ্ছে না – নিজের লাভের কথা ভেবেই শুধু বুলি আউড়েই শান্ত থাকতে হচ্ছে। অবশ্য তারা সুযোগ বুঝে তর্জন-গর্জন করা কমাচ্ছে না। তাদের বক্তব্য – গ্রীসসহ দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলোর অর্থনীতির রাশ আরও কড়া হাতে ধরতে হবে। বিশেষত গ্রীসের ওপর সকলেই বিশেষভাবে খাপ্পা – কারণ গ্রীসের ঋণগ্রহীতা সরকার। তাই সরকারের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন শর্ত, যার মধ্যে আছে সরকারী কর্মচারীদের বেতন-হ্রাস বা শিক্ষা-স্বাস্থ্য-খাতে টাকা কমানোর শর্তও। সম্প্রতি গ্রীসের ভোটের ফলাফলে মনে হয়েছে – গ্রীসের জনগণও সেটা মেনে নিয়েছে। আপাতত মনে হয় আগামী বছর কয়েক ইউরোপ খরচ কমানোর পথেই হাঁটবে। আর ইউরোপের ওপর জার্মানীর কর্তৃত্ব আরও জোরদার হবে।

ইউরোপের এই দুর্যোগের মধ্যে একটা কথা কেউ বলছে না – সেটা হল এশিয়ার কথা। ইউরোপীয় ইউনিয়ন তৈরীর সময় বলা হয়েছিল গাড়ি-শিল্পের কথা। জার্মান গাড়ি শিল্পের জন্য যন্ত্রপাতি তৈরীর শিল্প ইতালি বা স্পেনে তৈরী হবার কথা ছিল। তার জায়গায় সেই যন্ত্রপাতি এখন আসছে চিন, জাপান বা থাইল্যান্ড থেকে। অর্থাৎ, ইউরোপের ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্পের নিচের দিকটা (Low value added parts) নিয়ে নিয়েছে এশিয়া। জার্মানী থেকে আসা ঋণের টাকায় ইতালী বা স্পেন শিল্পের পরিকাঠামো বানায় নি – বিনিয়োগ করে গেছে রিয়েল এস্টেট বাবলে। খেসারত দিতে হচ্ছে তাদের।

পর্তুগালের অর্থনীতির সমস্যার একটা দিক বেশ মজার। বছরের পর বছর যেই অ্যাঙ্গোলাকে শোষণ করে পর্তুগালের সম্পদ এসেছিল, আজকে সেই অ্যাঙ্গোলাই পর্তুগালের অর্থনীতির ভরসা। উপনিবেশিকতার সূত্রে অ্যাঙ্গোলার সরকারী ভাষা পর্তুগীজ। আর তাদের অর্থনীতিতে এখন বুম চলছে – তেলের আবিষ্কারের হাত ধরে। স্বভাবতই দলে দলে পর্তুগীজ ইঞ্জিনিয়ার-ডাক্তার দেশের ২৫% বেকারী এড়িয়ে চাকরি জোটাতে পাড়ি দিচ্ছে অ্যাঙ্গোলার দিকে। না – এবারে আর রাইফেল হাতে নয় – হাতে রেসিউমে – লক্ষ্য ভালো চাকরি, ক্ষমতা দখল নয়। পর্তুগাল এখন অ্যাঙ্গোলা থেকে যা রেমিট্যান্স আনে, তার থেকে কম আনে ব্রিটেন থেকে। নিয়তির পরিহাসে অ্যাঙ্গোলা এখন আর পর্তুগাল থেকে বিশেষ একটা রেমিট্যান্স পায় না।

ইউরোর সমস্যা দেখে ট্র্যাজেডি অব কমনসের কথাই বারবার মনে হয়। মৌলিক-ভাবে ভিন্ন ধারার কয়েকটি অর্থনীতি যদি একসাথে চলতে চায় তাহলে তাদের মধ্যে “কমন-পুল-অব-মানি” সবাই নিজের দিকে টেনে নিতে চাইবে। সবাই বেশী বেশী করে ধার করবে, কারণ পতন ঠেকানোর দায় তাদের একার নয় – বাকিদেরও। উলটোপথে হেঁটে বরং জার্মানী এখন দুই ট্রিলিয়ন ডলার গচ্চা দেওয়ার মুখে। তাই প্রথম থেকেই রেগুলেশন ব্যাপারটা জোরেসোরে না কাজে লাগালে এইরকম অর্থনৈতিক গাঁটছড়া টিকবে না – ভবিষ্যতেও না। তবে এটাও জেনে রাখা ভাল – জাপান, চিন বা জার্মানীর মত রপ্তানী-নির্ভর দেশ সব দেশের পক্ষে হওয়া সম্ভব না – পুরোনো পাটিগণিতের নিয়মেই সম্ভব না। বিক্রেতা বা উৎপাদক আছে বলেই ভোক্তা আছে – এটাও যেমন ঠিক, এর উল্টো-টাও তেমনভাবেই সত্য। তাই জার্মানীর মত দেশকেও নিজের উৎপাদন যাতে ভোগের তুলনায় খুব বেশী না হয়ে যায় – তার দিকে নজর রাখতে হবে।

জার্মানী এর আগে দু-বার ইউরোপের কর্তৃত্ব নিতে চেয়েছিল। দুবারেই যুদ্ধের হাত ধরে। আর দুবারেই পরিণতি হয়েছিল করুণ। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সমস্ত অর্থনৈতিক দায় চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল জার্মানীর ওপর – যার পরিণতিতে জার্মান মুদ্রায় এতটা মুদ্রাস্ফীতি হয়েছিল যে ১৯২৩ সালে এক মার্কিণ ডলারের বিরুদ্ধে ৪ ট্রিলিয়ণ জার্মান মার্ক পাওয়া যেত (১৯১৪ সালে ১ ডলার ছিল ৪ মার্ক)। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের পরে ভেঙে তাদের দু-টুকরো করে দেওয়া হল, যা জোড়া লাগতে দীর্ঘ ৪৫ বছর সময় লাগল। যদি গ্রীসের মত ইতালী, স্পেন আর পর্তুগালকেও জার্মানী নিজের “প্যাকেজে” রাজী করিয়ে ফেলতে পারে – তাহলে দীর্ঘদিনের জন্য অর্ধেক ইউরোপ জার্মানীর কার্যত উপনিবেশে পরিণত হবে। ঋণের বোঝা থেকে চট করে মুক্তি মিলবে না, অথচ জার্মান পণ্য তাদের কিনে যেতে হবে – মানে দেশে শিল্প সম্ভাবনা কম। হিটলার যে কাজটা সমরাস্ত্র দিয়ে করে দেখাতে পারেননি, কর্মঠ জার্মানরা অর্থনীতির হাত ধরে তাই করে দেখিয়ে দিচ্ছে – এভাবেও ফিরে আসা যায়।

আরো কিছু সহজপাঠ্য –
১) তিন ধাপে ইউরোপের ক্রাইসিস
২) বিবিসি থেকে
৩) গ্যারেট হার্ডিনের পেপার
৪) বিবিসির ডকুমেন্টরি

প্রথম ছবিটি এন-পি-আর ব্লগ থেকে, দ্বিতীয় ও তৃতীয়টি উইকি থেকে ও চতুর্থটি নিউ-ইয়র্ক টাইমস ব্লগ থেকে নেওয়া।

লাখ টাকার স্বপ্ন

জানুয়ারি 11, 2008


কালকে টিভিতে বসে দেখলাম দিল্লীর প্রগতি ময়দানে টাটার এক-লাখি গাড়ির উদ্বোধন। সত্যি কথা বলতে, গাড়িটা আমাকে একরকম চমকেই দিয়েছে। আমি ভেবেছিলাম একটা পলকা দুই সিট-ওয়ালা একটা মাথা গোঁজার গাড়ি। তার জায়গায় টাটা আমাকে যা দেখালো, তা হল রীতিমত একটা গাড়ি। কালকেই বাবা-মায়ের সাথে কথা হল – গাড়ি কিনছিই। আর কিছু না হোক হুজুগ তো বটে।রতন টাটার কথামত একে “লাখ টাকার স্বপ্ন” বললে কমই বলা হয়। মধ্যবিত্তের চাহিদা আর নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে এত কম দামে গাড়ি ভারতের বাজারে আগে আসেনি। তাই কালকে টাটা ন্যানো বা টাটার এক-লাখি গাড়ি বাজারে আসতেই বাজার সরগরম। নতুন বছরে এই চমকের ফলে নড়ে বসেছে মধ্যবিত্ত, গাড়ি বিক্রেতা থেকে শুরু করে শেয়ার ব্রোকারেরাও। গাড়ির নাম ন্যানো কারণ গাড়ি বাজারে এটাই সবথেকে ছোট আকারে, আর গাড়িতে ব্যবহৃত হয়েছে আধুনিক ন্যানো-টেকনলজি।

টাটা সন্সের প্রধান রতন টাটা সাক্ষাতকারে বলছেন এটাই তার “একলা চলো রে” নীতির ফসল। উনি আগে এশিয়ানদের জন্য স্কুটারের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে “জনগণের গাড়ি”(Peoples’ car) প্রস্তাব দিয়েছিলেন গাড়ি-নির্মাতাদের সম্মেলনে – যা ব্যবহৃত হতে পারে ভারতীয় উপমহাদেশ ছাড়াও ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া বা চীনে। তখন কেউ সাড়া দেয়নি, হয়ত বা অবাস্তব বলে উড়িয়ে দিয়েছিল। তারপরে গত চার বছরে পাঁচশ জনের গবেষকদল এই গাড়ি বানিয়েছেন। পথ মসৃণ ছিল না, একদিকে ছিল দামের বাধা, আরেকদিকে গুণগত মান সুনিশ্চিত করার ইচ্ছা। আপাতদৃষ্টিতে, উনি সফল। সময় কিছুটা বেশী লাগলেও – সব টপকে এখন টাটা আবার সামনের সারিতে।

কতটা ভাল এই গাড়ি? সাধারণভাবে বললে মোটেও ভাল না। কিন্তু এই দামের কথা ভাবা হলে তা পুষিয়ে যায়। ডিজাইনের কথায় আসা যাক। গাড়ির বডি হবে অ্যালুমিনিয়াম আর প্লাস্টিকের। পাওয়ার স্টিয়ারিং থাকবে না। থাকবে না নিরাপত্তার জন্য এয়ার কন্ডিশনার, এয়ার ব্যাগ বা সেফটি বিম। গাড়ির সর্বোচ্চ গতিবেগ ধরা হচ্ছে ১০৫ কিমি প্রতি ঘন্টা, যদিও আদর্শ গতিবেগ বলা হয়েছে ৭০ কিমি/ঘন্টা। ভারতের শহুরে রাস্তার জন্য এই গতিবেগ আদর্শ। ৬২৩ সিসির ইঞ্জিন তৈরী হবে জার্মান কোম্পানী বস (Bosch) এর কারখানায়। প্রতি লিটার তেলে ২০-২৫ কিমি গাড়ি চলবে।

এই গাড়ি ব্যবসা করবে কি ভাবে? সাধারণ হিসাবে টাটার বাজার আসবে মূলত মারুতি আর মোটরবাইকের বাজার থেকেই। প্রতি বছর দেশে প্রায় ১৫ লাখ মারুতি অল্টো আর মারুতি ৮০০ বিক্রি হয়। প্রাথমিক সমীক্ষায় বলা হচ্ছে, মোটরসাইকেল বাজারের ১০% লোকে এবার টাটার গাড়ি কিনবে। মূলত তিনটি মডেল বাজারে আনছে টাটা। প্রথমটি টাটার বেসিক মডেল, যার দাম হবে ১ লাখ টাকা – ট্যাক্স আর পরিবহন মিলে রাস্তায় নামাতে আরো তিরিশ হাজার। এ ছাড়াও থাকছে আরো দুটি একই রকম দেখতে ডিলাক্স মডেল। সেগুলোতে থাকছে বাকি নিরাপত্তা সম্পর্কিত সুবিধা গুলো আর সাথে এয়ার কন্ডিশনার। রতন টাটার বক্তব্যমতে, টাটার বেসিক মডেল থেকে নগণ্য লাভ হবে, যা পুষিয়ে যাবে ডিলাক্স গাড়ির বিক্রি থেকে। টাটার এই গাড়ির উতপাদন মূল্য ধরা হয়েছে মাত্র ৬৫,০০০ টাকা। বিক্রির বাজার ধরা হচ্ছে ভারতীয় উপমহাদেশ ছাড়াও পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া, ব্রাজিল সহ লাতিন আমেরিকা আর আফ্রিকা। টাটার প্রাথমিক লক্ষ্যমাত্রা বছরে আড়াই লাখ গাড়ি বেচা।

এসব সত্ত্বেও সমালোচনা পিছু ছাড়ে নি টাটা ন্যানোর। ইংল্যান্ডের টাইমস অনলাইন গাড়িটার সমালোচনা করে লিখেছে যে দাম কমাতে টাটা গাড়ির নিরাপত্তাও কমিয়ে দিয়েছে। রতন টাটা অবশ্য বলেছেন যে ব্রিটিশ বাজারের জন্য তার গাড়ি নয় – তাই ব্রিটিশ সেফটি স্ট্যান্ডার্ডের কথা উনি ভাবেন নি। ভারতেও পরিবেশবিদেরা আগে থেকেই সতর্ক করে দিচ্ছেন যে এর ফলে রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা হু হু করে বেড়ে যেতে পারে। ফলে বাড়তে পারে পরিবেশ দূষণ আর সাথে ট্র্যাফিক জ্যাম। ভর্তুকি দেওয়া পেট্রোলের চাহিদা বাড়ার কারণে লোকসান করবে তেল আমদানীকারক সংস্থাগুলোও। আর আছে রাস্তায় ঝুঁকি – বাড়বে দুর্ঘটনা। টাটার এই গাড়ি যে কারখানায় তৈরী হবার কথা, সেই সিঙ্গুরের গণ্ডোগোল তো আগেই সমস্যা বাধিয়েছে। অনেক মানুষকে নিজের জায়গা থেকে তুলে দিয়ে শুরু হয়েছে কারখানা।

কালকেই টাটার প্রতিদ্বন্দী সংস্থা বাজাজ (এরা অটো বিক্রেতা হিসাবে খ্যাত) ঘোষণা করেছেন তারা বাজারে ২০১০ এর মধ্যে ১,২০,০০০ টাকার গাড়ি আনবেন – যার নাম হবে “হামারা”। এর জন্য তারা হাত মিলিয়েছেন বিশ্বখ্যাত সংস্থা রেনল্ট ও নিশান-এর সাথে।

কিছুকাল আগে দেখলাম পাকিস্তানও নিজস্ব এক লাখ টাকার গাড়ি বানিয়েছে – হাবিব মোটরসের এই গাড়িটির বর্তমান দাম ১,৫৯,০০০ পাকিস্তানি রুপি। সিতারা নামের এই গাড়ি পাকিস্তানের রাস্তায় খুব একটা চলেনি। তবে সম্প্রতি পাকিস্তানের রাস্তায় ট্যাক্সি হিসাবে ব্যবহারের অনুমতি দেবার পরে মনে করা হচ্ছে এর বাজার বাড়বে। বাংলাদেশের গাড়ি প্রথম কবে দেখতে পাবো?

তবে একটা ব্যাপার খুবই ঠিক, যে আজ থেকে ত্রিশ-চল্লিশ বছর আগে ইন্দিরা গান্ধীর আমলে স্বনির্ভরতার জন্য মারুতির হাত ধরে যে উদ্যোগ শুরু হয়েছিল, আজকের টাটা ন্যানো তারই ফসল। মারুতি প্রথমদিকে অত্যন্ত খারাপ গাড়ি বানাতো, সেই গাড়ির বাজার সুনিশ্চিত করতে সরকার উচ্চহারে শুল্ক বসিয়েছিল বিদেশী গাড়ি আমদানির ওপর। একটা সময় ছিল যখন ১০ লাখ টাকা দামের গাড়ি আমদানী করতে কর দিতে হত ৩০ লাখ টাকা, এখন কিছুটা কমলেও বিশেষ কিছু কমে নি। ভারতে এখনো যে দামী বিদেশী গাড়ি দেখা যায় তাও মূলত দেশে অ্যাসেম্বল্ড – মার্সিডিস থেকে লোগান। এর ফলে দীর্ঘ সময় ধরে তৈরী হয়েছে অনেক দক্ষ শ্রমিক, ইঞ্জিনিয়ার আর ব্র্যান্ড। আর দেশীয় গাড়ি নির্মাতার উতসাহ পেয়ে দেশে কম দামে গাড়ি তৈরীর চেষ্টা করে গেছে। গাড়ির মান প্রথমে অনেক খারাপ ছিল, কিন্তু ধীরে ধীরে উন্নতিও হয়েছে। টাটা ন্যানোর ইঞ্জিনিয়ারিং দক্ষতা এসেছে এই মারুতি থেকে সরিয়ে আনা ইঞ্জিনিয়ারদের হাত ধরেই।

আমি নিজে অবশ্য ধীরে চল নীতি নিচ্ছি। আগেরবারে টাটার ইন্ডিকা গাড়িতে প্রথম এডিশনে চাকায় ভুলত্রুটি ছিল। পরের এডিশনে অবশ্য তা শুধরে নিয়েছে। এবারেও একই ঘটনা ঘটবে না তার নিশ্চয়তা কোথায়? গাড়ি কিনলে হাইপের স্টেজটা কেটে গেলে তারপরেই কেনা ভাল।

বছরের শেষে এই গাড়ি বাজারে আসবে। কিন্তু বছরের শুরুতেই সেরকম হাইপ তৈরী হয়েছে যে টাটা এখন খুব সংকটে। যদি বছরের শেষে গ্রাহকদের প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারে? তাহলে টাটার নাম বা ব্র্যান্ড কিছুদিনের জন্য একটা বড় ধাক্কা খেতে চলেছে। আর উল্টোদিকে সফল হলে সবটাই ইতিহাস হয়ে যাবে।

টাটার গাড়ির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান (ইউটিউব ভিডিও)
একনজরে টাটা ন্যানো ১
একনজরে টাটা ন্যানো ২
একনজরে টাটা ন্যানো ৩

সফটওয়ারের বুদবুদ

জানুয়ারি 11, 2008

সুবিনয় মুস্তাফীর লেখা পড়ে আমার মনে হল ভারতের অর্থনীতির বর্তমান বুদবুদ সম্পর্কে কিছুটা লিখেই ফেলি। আমার মনে আছে ছোটবেলায় একধরনের অংক করতাম যাতে হিসাব করতে হত বুদবুদের আকার কি হারে বাড়বে। আমাদের এখানের এই সফটওয়ার বুদবুদ আমার সব হিসাব ছাড়িয়ে বড় হয়েই চলেছে, আর আমি এই বুদবুদ ফাটার অপেক্ষায় কান বন্ধ করে অপেক্ষা করছি।

আগে শুরু করা যাক একটু পুরোনো ফ্ল্যাশব্যাক থেকে। এখানে সফটয়ার শিল্পের শুরু হল একরকম নব্বই দশকে উদার অর্থনীতির হাত ধরে। যদিও, ইন্দিরা গান্ধীর আমলে দেশীয় স্বয়ং-সম্পূর্ণতা আনার লক্ষ্যে আই-বি-এম কে তাড়িয়ে দিয়ে একরকম দেশীয় কোম্পানীদের ব্যবসার সুযোগ করে দেওয়া হয়। উইপ্রো, টিসিএস আর ইনফোসিসের সূত্রপাত এ সময়েই। তবে আসল কাজ করার সুযোগ আসে ওয়াই-টু-কে সমস্যার হাত ধরে। প্রচুর কাজ একসাথে এসে পড়ায় আমেরিকান কোম্পানিরা খরচা বাঁচাতে কিছু ভারতীয় কোম্পানীকে কনট্রাকটে কাজ আউটসোর্স করে দিতে থাকে। ভারতের বাজারে তখন সেই সামান্য টাকার চাকরি দেবার লোকও ছিল না। ফলে দলে দলে লোকে সফটওয়ার শিল্পে চলে আসে। কাজে সাফল্য পেয়ে অনেক কোম্পানী অন্য কাজও দিতে শুরু করে – একে একে আসতে থাকে সার্ভার ম্যানাজমেন্ট, ডেটাবেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা প্রোগ্রামিং-এর কাজও। কিন্তু আবার বাদ সাধে ২০০০ সালের মন্দা আর পরবর্তীকালের ৯/১১ হামলা।

আর এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে আছে চাকরির বাজার। আমাদের এখানে মোটামুটি ভাল সব ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে শেষ বর্ষে ক্যাম্পাসেই চাকরির ইন্টারভিউ হয়। কোম্পানীগুলো “ফ্রেশার” ছাত্রদের চাকরির অফার দিয়ে যায়। পরে পাশ করে বেরোলে ছাত্ররা সেই কোম্পানীতে সুবিধামত যোগ দেয়। ২০০০ সালে চাকরির বাজার এত ভাল গিয়েছিল যে আমাদের কলেজে খুব তাড়াতাড়িই কম্পিউটার সায়েন্সের সবার চাকরি হয়ে গেছিল, তারপরে অন্য বিভাগের ছেলেরাও সফটওয়ারের চাকরি পাচ্ছিল (ক্যাম্পাসে একজন একটার বেশী চাকরি পেতে পারে না, দ্বিতীয় চাকরি বাইরে থেকে পেতে হয়)। আমাদের ২০০১ সালে আমরা আরো তাড়াতাড়ি চাকরি পেয়ে গেলাম – মাসে ১০-১২ হাজার থেকে শুরু করে ৩০-৩৫ হাজার পর্যন্ত মাইনে। কিন্তু বেরোতে না বেরোতে চাকরি বাজার থেকে উধাও – যারা অফার করে গেছে তাদের আর পাত্তা নেই। কেউ বলে নিতে পারবনা, কেউ বলে পরে নেব – আপাতত জায়গা নেই। খুব হাতে গোনা কয়েকটি কোম্পানীতে জয়েন করতে পারল ছেলেরা। এই মন্দা কাটতে সময় লেগে গেল আরো তিন বছর।

তিন বছর পরে দেখা গেল ভারতীয় কোম্পানীদের সাথে পাল্লা দিয়ে বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানীরাও বাজারে চলে এসেছে। কারণ মন্দার বাজারে, ভারতীয় কোম্পানীদের সাথে পাল্লা দেবার জন্য সেটাই ভাল কৌশল। আর এ এমন কৌশল, যে একজন তা অবলম্বন করলে বাকিরাও তা করতে বাধ্য। তাই, দলে দলে বহুজাতিক ভারতে অফিস খুলে অফারের ঝুলি নিয়ে কলেজে আসা শুরু করল ২০০৩-০৪ নাগাদ। আই-বি-এম ফিরে এল কোলকাতায়, যেখান থেকে তাদের অনশন ধর্মঘট করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল এককালে। আবার ছেলেরা চাকরি পেতে থাকল ভাল বেতনের।

মুশকিলটা হল, এইবারে আর এই চাকরির বুদবুদের কোনো শেষের লক্ষণ দেখছি না। বুদবুদের আকার বেড়েই চলেছে। আমি ১৯৯৭ সালে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে ঢুকেছিলাম যখন পশ্চিমবঙ্গে সাকুল্যে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের সংখ্যা ছিল ৬টি, যার মধ্যে একটি বেসরকারি। ছাত্র নেওয়া হত ১৮০০। আর এখন অসংখ্য ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ আর সিট ২৫-৩০ হাজারের মত। কম্পুটারের ছাত্র সফটওয়ারের কাজ করবে – সে দিন আগেই চলে গেছে। নতুন ধারায় সিভিল, মেকানিকালের ছাত্রও সফটওয়ারের কাজে যোগ দেয় মাইনের লোভে। এদের চাকরির বাজার তুঙ্গে। সদ্য খোলা একেকটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের প্রথম ব্যাচের ছাত্রদের প্রায় অর্ধেকই দেখি ক্যাম্পাসেই চাকরি নিয়ে বসে আছে। টিসিএস মাঝে মাঝে এক-একটা প্রোজেক্ট পাচ্ছে যাতে ৮০০০ থেকে ১০০০০ “মাথা” দরকার। তারা আসে কোথা থেকে? ক্যাম্পাসে গিয়ে ধরে আনা হয়। পিছিয়ে নেই বিজ্ঞান বা কলা-বিভাগের ছাত্ররাও – ডিপ্লোমা করে তারাও নাম লেখাচ্ছে একই দলে। বেড়ে চলেছে চাকরির মাইনে – আর সাথে সাথে মাইনে না বাড়ালে অন্য চাকরিতে চলে যাও। গাদা গাদা রিক্রুটমেন্ট এজেন্সী খালি “মাথা” ধরে এনে দেয় – মাথাপিছু তাদেরও টাকা মেলে ভালই। এই সফটওয়ারের সূত্রে গগনচুম্বী হয়ে গেছে রিয়েল এস্টেটের দাম – শুধুমাত্র যে অঞ্চলে সফটওয়ারের লোকজন থাকে সে অঞ্চলেই। সফটওয়ারের সাথে যোগ দিয়েছে বি-পি-ও, ওপারের লোকজনের সাথে ফোনে ইংরেজীতে কথা বলার চাকরি। সাধারণ ছেলেরা উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেই কাঁড়ি-কাঁড়ি পকেটমানি তৈরী করে ফেলছে পার্টটাইম কাজ করে।

আর এর ফলে সমস্যাও কম তৈরী হচ্ছে না। একে তো নতুন ইঞ্জিনিয়ারদের গুণগত মান খারাপ থেকে আরো খারাপের দিকে নেমে চলেছে আরেকদিকে ভাল ছাত্ররা শিক্ষকতার মত মহত পেশায় আর কেউ আসছেনা। বাজার তো ফুলেই চলেছে। সাধারণ সরকারি চাকুরেরা আর প্রতিযোগিতায় না পেরে উঠে মূল্যবৃদ্ধিকে দুষছেন। আর অন্যান্য শিল্পে দক্ষ শ্রমিকের অভাব দেখা দিচ্ছে – ভাবুন তো আর্কিটেক্টরা যদি দলে দলে সফটওয়ারে যায় তবে আর্কিটেকচারের কাজ কে করবে? কদিন আগে দেখলাম লার্সেন অ্যান্ড টুব্রোর মত নামকরা নির্মান শিল্পের কোম্পানী দাবী জানিয়েছে যে তাদের অধিকাংশ কর্মী প্রথম দু-বছরের মধ্যে ছেড়ে চলে যাচ্ছে – তাও কিনা সফটওয়ারে।

কিন্তু বুদবুদ ফাটলে কি ঘটবে? ভেবেও ভয় হয়। যে হারে টাকার(রুপি) দাম ডলারের বিরুদ্ধে বেড়ে চলেছে তাতে ক’দিনের মধ্যে আমেরিকায় সফটওয়ার রপ্তানী করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়বে। কিন্তু ক্রমবর্ধমান বেতনের বিল তো কোম্পানীর পকেট ফাঁকা করেই চলেছে। তাই এই গ্যাপ ভরাতে নতুন কোনো কৌশল অবলম্বন না করলে অবিলম্বে এই বুদবুদ তো সশব্দে ফেটে পড়বে। প্রভাবিত হবে সারা ভারতের সাথে সাথে আরো অনেক দেশও। তাহলে আমি কি নিজের চোখে দ্বিতীয় বুদবুদের পরিসমাপ্তি দেখতে পাব? (Hard Landing)নাকি কালের সাথে সাথে ধীরে ধীরে চুপসে যাবে? (Soft Landing) সেটাই এখন আমার কাছে লাখ টাকার প্রশ্ন।

বাজার নেই তাই সাহায্য আবার কি?

জানুয়ারি 11, 2008

আমাদের দেশের বাড়ি ছিল পটুয়াখালি জেলার কাছিপাড়া গ্রামে। গ্রামের সাথে আমাদের সম্পর্ক শেষ হয়ে যায় ১৯৭৮ সালে, আমার জন্মেরও আগে। গ্রামের অনেক গল্প শুনেছি, ভেবেছি একবার ঘুরে আসব। ঢাকা গেলেও গ্রামের দিকে আর যাব যাব করেও আর যাওয়া হয় না। এখন মনে হচ্ছে আর গিয়ে কি হবে, আছে কি কিছু বেঁচে? আমার এখানে বসে সমবেদনা জানানো ছাড়া কিছু করার নেই মনে হয়।

কিন্তু আজকে সকালে খবরের কাগজে একটা খবর পড়ে মনে হল আমাদেরও অনেক কিছু করার ছিল হয়ত। ভারত সরকার প্রাথমিক ত্রাণের জন্য মাত্র ৪ কোটি টাকা বা ১ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করেছে। সাথে কোনো প্রতিশ্রুতি নেই চপারের, নেই জাহাজ পাঠানোর উদ্যোগ। প্রণব মুখার্জি পার্লামেন্টে সমবেদনা জানিয়েছেন। সাহায্যের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন। কিছু শুকনো কথায় কি চিঁড়ে ভেজে?

সোজা কথায় বললে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় প্রতিবেশী হিসাবে, এবছরের সবথেকে বড় আঞ্চলিক বিপর্যয়ে অনেক কিছুই করা সম্ভব ভারতের পক্ষে। মিলিটারি হেলিকপ্টার পাঠানো সম্ভব দূর প্রান্তবর্তী গ্রামগুলোতে। বড় জাহাজভর্তি ত্রাণসামগ্রী পৌছে দেওয়া সম্ভব উপকূলবর্তী অঞ্চলে।

এর পাশে দেখা যাক আগে ২০০৫ এ পাকিস্তানে ভূমিকম্পের পরে ভারত সরকার কিভাবে সাহায্য করেছিল। ততক্ষণাত ২৫ মিলিয়ন ডলার ত্রাণের ব্যবস্থা ছাড়াও মিলিটারি চপার আর উদ্ধারকারী বাহিনীও পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছিল। পরে গিয়েছিল আটা, শুকনো খাবার আর টিনের চালা। মজার কথা তখন ভারতীয় কাশ্মীরেও ভূমিকম্প হয়েছিল। ওই একি বছরে হারিকেন ক্যাটরিনার জন্য ভারত সরকার ৫ মিলিয়ন ডলারের সাহায্য আমেরিকায় (যাদের মাথাপিছু আয় ৩০ হাজার ডলারেরও বেশী) গিয়েছিল দুটো বড় ক্যারিয়ার বিমান সহ। আমেরিকা থেকে ত্রাণ বিতরণের জন্য জাহাজ আসবে এক সপ্তাহ পরে। এদিকে ভারতীয় যে জাহাজগুলো বঙ্গোপসাগরে ঘুরে বেড়াচ্ছে, হয়ত এক দিনের মধ্যে তারা ত্রাণ বিতরণে যোগদান করতে পারত।

আরো আগে সুনামির সময়েও ভারত ক্ষতিগ্রস্ত ছিল। তা সত্ত্বেও শ্রীলংকা আর ইন্দোনেশিয়াতে ত্রাণ পাঠানো হয়েছিল। শ্রীলংকায় তো বটেই, এমনকি ইন্দোনেশিয়াতেও ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ আর চপার হেলিকপ্টার ত্রাণের কাজ করেছিল।

আর এ বছরেই শুধুমাত্র বন্যাদুর্গত উগান্ডার জন্য ভারত সরকার ১০ মিলিয়ন ডলারের ত্রাণ পাঠিয়েছে। পাঠিয়েছে জাহাজ আর লোকবল। হয়ত উগান্ডার মার্কেটে ভারতীয় আগ্রহের কথা ভেবেই এই সাহায্য।

পুঁজীবাদী দুনিয়ায় সাহায্য হল একরকম বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপন মানে, অলিখিত ভাবে বলা – “দেখ, আমরা তোমাদের বিপদে পাশে দাঁড়িয়েছি, তাই তোমরা আমাদের জিনিস আরো বেশী করে কিনবে।” এই সিস্টেমে সাহায্য তাদেরই পাঠানো উচিত, যাদের ভবিষ্যতে ক্রয়ক্ষমতা হবে এবং একই ব্র্যান্ডের জিনিস আরও বেশী করে কিনতে আগ্রহী হবে। আর বাজার না থাকলে সাহায্য করে কি লাভ? তাই সাহায্য যাবে বড়লোকেদের কাছে, গরিবদের কাছে নয়। চিনের পথে হেঁটে বাজার ধরতে গিয়ে এখন ভারতও একই নীতিতে চলছে। তাই এটা কোনো আক্সিডেন্ট নয় যে ভারতের মত এশিয়ার আরেক উন্নয়নশীল দেশ চিনও মাত্র ১ মিলিয়ন ডলারের সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে ধন্যবাদ ব্যাপারটাকে ভারতীয়দের দৃষ্টিগোচর করার জন্য। তবে, ধ্বংসস্তুপে বসে থাকা বাংলাদেশের দিকে শুকনো মুখে বন্ধুত্ত্বের ঠান্ডা হাত বাড়িয়ে দেওয়া দেখে মনে হয় কোথাও একটা ভুল হচ্ছে যেন। ঠিক কোনখানে আমি জানি না, কিন্তু ভুল নিশ্চয় হচ্ছে। সময় গেলে এই ভুলের খেসারত না দিতে হয়। সাহায্য যাওয়া উচিত মানবিকতার খাতিরে, বাজারের খাতিরে নয়। প্রাচ্যের সভ্যতার দীর্ঘদিনের এই নীতির উলটো পথে হেঁটে কতদিন চলতে পারা যায় – দেখা যাক।
(ছবি – সি-এন-এন/এ-পি)

খোদার ওপর খোদকারী

জানুয়ারি 11, 2008

[ক্রেগ ভেন্টর জেনেটিক্সের জগতে এক পরিচিত নাম। তিনি হলেন ক্রেগ ভেন্টর ইন্সটিটিউট-এর প্রতিষ্ঠাতা, যা জেনেটিক্সের গবেষণায় অগ্রণী এক সংস্থা। নিচের লেখাটা তাঁর একটি বক্তৃতা অবলম্বনে লেখা।]
জেনেটিক কোড হল জীবনের ব্লুপ্রিন্ট। প্রতি জীবকোষে এই কোডই নির্ধারণ করে কোষের কার্যকারিতা – কোষ কোন কোন প্রোটিন তৈরী করবে, কিভাবে করবে। জেনেটিক কোড নিয়ে গবেষণায় মূলত দুটো ভাগ করা যায়। ধাপদুটোকে সাধারণভাবে বলা যায়, একটা জেনেটিক কোড পড়তে শেখা আরেকটা লিখতে শেখা। পড়তে শেখা বলতে জীবের জিনোমে বেসিক ব্লকগুলোর শৃঙ্খলা লিপিবদ্ধ করা। আর লিখতে শেখা বলতে সেই লিপিবদ্ধ শৃঙ্খলা থেকে পৃথকভাবে জীবকোষ তৈরী করা।

প্রায় এক দশক আগে প্রথম যখন আমরা একটি ভাইরাসের জিনোম পড়তে পেরেছিলাম তখন সেটা আমাদের ১৩ বছর পরিশ্রমের ফসল ছিল। আজ আমরা একই কাজ মাত্র ২ থেকে ৮ ঘন্টায় করে দেখাতে পারি। এর পরেও অনেক উদ্ভিদ, সাধারণ প্রাণী এমনকি মানুষের জিনোমও আমরা পড়তে পেরেছি। এ বছরের শেষে আমরা মনে করি আরো তিন থেকে পাঁচটি জীবের জিনোম পড়তে পারব। পরিবেশবাদী একটি সংস্থা এ বছরের মধ্যে ১৩০টি জিনোম পড়ার উদ্যোগ নিয়েছে।

এবারে আসা যাক কৃত্রিম জীবনের কথায় – মানে জিনোম লেখার খেলায়। সবথেকে সরল জীবন ভাইরাস পরীক্ষাগারে তৈরী করা সম্ভব হয়েছে অনেকদিন হল। আমাদের সহকারী এক বিজ্ঞানীর প্রচেষ্টায় এখন মাত্র দু-সপ্তাহে যথেষ্ট জটিল প্রকৃতির ভাইরাস তৈরী করা সম্ভব হচ্ছে, এখনো অবধি পোলিও ভাইরাস সহ দশ হাজার প্রজাতির ভাইরাস তৈরী করা গেছে এই পদ্ধতিতে। মোটামুটিভাবে, এখন যেসব ভাইরাসের জিনোম পড়া গেছে, তাদের কৃত্রিম উপায়ে তৈরী করাও সম্ভব। কিন্তু, নিজেদের পরিকল্পনামত ভাইরাস তৈরী করতে এখনো এক দশক লাগবে। তবে আশার কথা, আগামী দু-বছরের মধ্যে প্রোক্যারিওটিক কোষ আর দশ বছরের মধ্যে আমাদের শরীরের অংশ ইউক্যারিওটিক কোষ বানানো সম্ভব হবে।

জীবকোষ বানানোর পদ্ধতিও বেশ মজার। প্রথমে টুকরো টুকরো অবস্থায় বেস-পেয়ারগুলো তৈরী করা হয় – এগুলো আসলে কিছু রাসায়নিক ছাড়া কিছুই না। সেগুলোকরে জুড়ে তৈরী করা হয় সমগ্র একটি ক্রমোজোম। এই টুকরো জুড়ে গোটা ক্রোমোজম বানানোর কৌশল প্রকৃতি থেকেই শেখা। কয়েকটি বিশেষ প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া উচ্চ-ক্ষমতাসম্পন্ন বিকিরণের মধ্যেও বেঁচে থাকতে সক্ষম। প্রথমে বিকিরণে এদের ক্রোমোজোম টুকরো টুকরো হয়ে গেলেও বারো থেকে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যেআবার এরা তাকে জোড়া লাগাতে সক্ষম। এহেন অদ্ভুত ক্ষমতাধারী ব্যাকটেরিয়াকেই কাজে লাগানো হয় গোটা ক্রোমোজম বানানোর জন্য। বানানো গোটা ক্রোমোজম এর পরে স্থান করে নেয় পুরোনো একটি জীবকোষে, যার মধ্যেকার ক্রোমোজম আগেই সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সংক্ষেপে এই পদ্ধতিই হল জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং।

আমার বিশ্বাস জিনোম পড়া ও কৃত্রিম জীব সৃষ্টি মানুষের ইতিহাসের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় হতে চলেছে। অনেক এমন জীবাণু পাওয়া গেছে যারা কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করে, অনেকে বেঁচে থাকে জলের স্ফুটনাঙ্কে। পরিবেশের কার্বন-ডাই-অক্সাইড বা কার্বন-মণো-অক্সাইড নিয়ে অনেকে অন্যান্য বায়ো-পলিমার উতপাদন করে যা তেলের পরিবর্তে ব্যবহার হতে পারে। নরওয়েতে মিথেন থেকে হাইড্রোজেন নিষ্কাশনেও এরকমই এক কৃত্রিম জীবাণু ব্যবহৃত হবে। ভবিষ্যতে রোবট নিজে থেকেই কৃত্রিম জীবাণু তৈরী করতে পারবে। ওষুধ আর রাসায়নিক শিল্পেও ব্যবহার হবে কৃত্রিম জীবাণু, কারণ এরা সহজেই জটিল থেকে জটিলতর রাসায়নিক উতপাদন করতে পারে, অতি সহজে ও কম খরচে। আরো মজার ব্যাপার, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং-এর প্রয়োগে সাইনোব্যাকটেরিয়ার ফটো-সিন্থেসিসে পরিবর্তন এনে উপজাত হিসাবে হাইড্রোজেন পাওয়া সম্ভব হচ্ছে। ভবিষ্যতে হাইড্রোজেন যদি জ্বালানী হিসাবে ব্যবহৃত হয় তাহলে এই জীবাণুর ভূমিকা বাড়বে, সাথে আসবে আরো নতুন নতুন জীবাণু। এভাবেই আশা করা যাচ্ছে, আগামী কয়েক দশকের মধ্যে আমাদের খাদ্য, শক্তি বা রাসায়নিক শিল্পে অপরিহার্য হয়ে যাবে।

কিন্তু এত সম্ভাবনা সত্ত্বেও সমস্যার শেষ নেই। ১৯৯৯ সালে আমাদের প্রকল্প শুরুর আগে প্রায় দেড় বছর আমরা শুধু এথিকাল রিভিউতেই সময় দিয়েছি। সেও এক মজার ব্যাপার। বিভিন্ন ধর্মগুরুরা এসে তাদের ধর্মগ্রন্থ পড়ে সিদ্ধান্ত নেবার চেষ্টা করলেন যে কৃত্রিম জীবন তৈরী করা ধর্মীয় বিধিসংক্রান্ত কিনা। তারা তাদের ধর্মগ্রন্থে এর বিরোধী কিছু না পাওয়ায় আমাদের কাজ অনেক সহজ হয়ে গেছে। এর পরেও সমস্যা হল বায়ো-টেররিসম। কৃত্রিম জীবাণু বা ভাইরাস যে টেররিস্টদের কাজে ব্যবহার হবে না তা কে বলতে পারে? আর তা হলে পরিণতি হবে ভয়ানক। কিন্তু আমরা এখনো ততটা এগোতে পেরেছি বলে মনে হয়না। তাই আমি আশাবাদী, তার আগেই আমরা এর প্রতিরোধ করার উপায় বের করে ফেলতে পারব। আমি আপাতত স্লোন ফাউণ্ডেশনের সাহায্যে একটি প্রকল্পের সাথে যুক্ত আছি, যাতে এই সমস্যার প্রতিরোধের বিভিন্ন উপায় খতিয়ে দেখছি।

তবুও বলে রাখা ভাল, বিজ্ঞান একটি পদ্ধতি মাত্র – ব্যবহারকারী মানুষ। যদি মানুষ একে ভুল পথে ব্যবহার করতে চায়, বিজ্ঞানের নিজস্ব সত্ত্বা তাকে আটকাতে পারে না। তাই মানুষের সমস্যা মানুষকেই মোকাবিলা করতে হবে। এ বিষয়ে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং আর এটম বোমার খুব একটা তফাত নেই, ব্যবহার যেমন হবে আমাদের ভবিষ্যতও তেমনই এগোবে।

পুরো টক শো দেখতে হলে দেখুন এখানে।